প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন: ঢাকার বাইরের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ রাখার কোনো যৌক্তিকতা নেই

অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন: শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে তার বক্তব্য শুনলাম। শোনার পর মনে হলো, আমাদের দুর্ভাগ্য যে আমরা সত্যিকারের আলোকিত একজন শিক্ষাবিদকে শিক্ষামন্ত্রী হিসাবে পেলাম না। আমাদের দুর্ভাগ্য যে স্বাস্থ্য মন্ত্রী হন ইংরেজি সাহিত্যের একজন আর তথ্য ও স¤প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হন একজন ডাক্তার। আবার শিক্ষা মন্ত্রীও একজন ডাক্তার। এর আগের মেয়াদের দীপু মনি ছিলেন পরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী। কী অদ্ভুত না?

বলা হলো, প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ১২ জুন পর্যন্ত বাড়িয়ে পরদিন ১৩ জুন থেকে খুলে দেওয়া হবে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে বলা হলো করোনার টিকা দেওয়ার পরই কেবল বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খুলে দেওয়া হবে। এর আগে অনলাইনে ক্লাস এবং পরীক্ষাও চলবে। বোঝা যাচ্ছে সরকার নিরাপদ অবস্থানে থাকতে চায়। হল খুললে ঝুঁকি থাকে। বিশেষ করে আমাদের আবাসিক হলগুলোতে ছাত্রছাত্রীরা যেই পরিমাণ গাদাগাদি করে থাকে সেই অবস্থায় খোলাটা আসলেই ঝুঁকিপূর্ণ। কিন্তু ধাপে ধাপে নির্দিষ্ট কোনো বর্ষের জন্য খুলে কেবল পরীক্ষা ও ব্যবহারিক ক্লাসগুলো নেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারে। তবে এসব খুঁটিনাটি আইডিয়াতো আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়কে চিন্তা করে সরকারকে পথ দেখাতে হতো। কিন্তু এই উল্টো দেশে উল্টো জিনিস ঘটে। সরকার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনকে পথ দেখায়। কী আর বলবো?

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনও ঝুঁকি নিতে চায় না। যেকোনো নতুন আইডিয়া বাস্তবায়ন করতে গেলে কিছুটা ঝুঁকিতো থাকবেই। তাছাড়া প্রশাসনকে অতিরিক্ত কাজ করতে হবে। আমরা হয়তো ওটুকু করতে চাই না। বন্ধ রাখাটা সবচেয়ে ঝুঁকিহীন আরামের কাজ। কিন্তু এতে যে সারা বাংলাদেশের লাখ লাখ শিক্ষার্থী অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যদি পারে, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কেন নয়? বিশেষ করে ঢাকার বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ রাখার কোনো যৌক্তিকতা নেই। লেখক : শিক্ষক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত