প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আশুলিয়ায় যুবক হত্যা, ৩ বন্ধু গ্রেফতার

ইমদাদুল হক : [২] আশুলিয়ার কাঠগড়া এলাকায় হত্যাকান্ডের শিকার অজ্ঞাত যুবকের পরিচয় সনাক্ত হয়েছে। একই সাথে হত্যার রহস্য উদঘাটন করে ৩ হত্যাকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

[৩] বুধবার (২৬ মে) রাতে গাজীপুরের কোনাবাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা সবাই একে অপরের বন্ধু ও একই জেলায় বাসিন্দা।

[৪] গ্রেফতারকৃতরা হলেন- পাবনা জেলার সাথিয়া থানার ধুলাউড়ি গ্রামের মাহাতাব ব্যাপারীর ছেলে সোহেল (২২), একই এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে আব্দুল আলীম (১৭) ও আব্দুল খালেকের ছেলে জিহাদ। তারা সবাই দিনমজুর হিসেবে বিভিন্ন কাজ করতো।

[৫] উদ্ধারকৃত মরদেহটি পাবনা জেলার বেড়া থানার মঞ্জু মিয়ার ছেলে আল-আমিন (২০)। তিনি গ্রেফতারকৃতদের বন্ধু ছিলেন।এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার এস আই ফজর আলী জানান, নিহতের মোবাইলের অবস্থান শনাক্ত করে তদন্ত শুরু করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

[৬] মোবাইলের অবস্থান অনুযায়ী গাজীপুরের কোনাবাড়ি এলাকার একটি দোকানে মোবাইল বিক্রি করতে যায় আসামিরা। এসময় তাদের গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সবাই একে অপরের বন্ধু। এর মধ্যে সোহেল নিহত আল-আমীনের কাছ থেকে চাকরি দেওয়ার নাম করে ৯০ হাজার টাকা নেয়।

[৭] পরে চাকরি ও টাকা কিছুই না দিয়ে তালবাহানা করতে থাকে। পরে আল-আমীন বন্ধু সোহেলকে টাকার জন্য চাপ দেয় ও অপমান অপদস্ত করে। অপমানিত হয়ে গ্রেফতার তিন বন্ধু একত্রিত হয়ে আল-আমীনকে হত্যার পরিকল্পনা করে কাঠগড়ার পুকুরপাড়ের শামসুন্নাহারের বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নেয়। এখানেই গত ২২ মে রাতে তিন বন্ধু মিলে আল-আমীনকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

[৮] এর আগে গত রবিবার (২৩ মে) রাত ১ টার দিকে আশুলিয়ার কাঠগড়ার পুকুরপাড়ের ওই বাড়ি থেকে আল-আমীনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

[৯] প্রসঙ্গত, গত ১৯ মে পুলিশের সোর্স পরিচয় দিয়ে বাসা ভাড়া নেয় সোহেল নামের ওই যুবক। পরে ২৩ মে সকাল থেকে ঘরের দরজায় তালা ঝুলতে দেখেন বাড়িওয়ালা। রাতে ঘর থেকে পঁচা গন্ধ বের হলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পরে রাত ১ টার দিকে আশুলিয়া থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।সম্পাদনা:অনন্যা আফরিন

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত