প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] নার্সকে মারধর করায় স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা কারাগারে

আফরোজা সরকার : [২] রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্সকে মারধরের অভিযোগে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক মেহেদী হাসান শাফিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

[৩] এ ঘটনায় রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতয়ালী থানায় আহত নার্সের স্বামী শফিউল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

[৪] মঙ্গলবার (২৫ মে) বিকেলে ঢাকা পোস্টকে বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতয়ালী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশিদ জানান, দুপুরে আদালতের মাধ্যমে মেহেদী হাসানকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

[৫] জানা গেছে, রংপুর নগরীর ধাপ হাজীপাড়া এলাকার বাসিন্দা রমেক হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোকেনা বেগমের (৪৩) সাথে জমিজমা নিয়ে প্রতিবেশী মেহেদী হাসান শাফির (৩২) বিরোধ চলে আসছিল। বাড়ি নির্মাণে ৩ ফুট জায়গা ছেড়ে দেওয়ার কথা থাকলেও মেহেদী প্রভাব খাটিয়ে কোনো জায়গা না ছেড়ে দিয়ে মোকেনার বাড়ি ঘেঁষে তার ভবন নির্মাণ করেছে। সম্প্রতি নির্মিত ভবনের দেয়াল রং করার জন্য প্রতিবেশী মোকেনার বাড়িতে ঢুকতে চাইলে তিনি আপত্তি জানান।

[৬] এনিয়ে সোমবার বিকেলে মোকেনা বেগম বাসার বাহিরে বের হলে অভিযুক্ত মেহেদী হাসান ইটাপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। ঘটনা এক পর্যায়ে ইটের আঘাতে মোকেনা বেগমের মুখ থেতলে গিয়ে দাঁত ভেঙে যান। প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়াতে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পরে মোকেনা। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

[৭] মোকেনার স্বামী শফিউল ইসলামের অভিযোগ, সোমবার (২৪ মে) সন্ধ্যায় হাসপাতাল থেকে বাড়িতে যাওয়ার সময় নার্স মোকেনাকে পথরোধ করে ক্ষুদ্ধ মেহেদী ইট দিয়ে এলোপাতারি ঢিল ছুড়েন। এতে মোকেনার আঘাতপ্রাপ্ত । তার স্ত্রীর দাঁত ভেঙ্গে যায় ও প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। গুরুত্বর আহত অবস্থায় ঘটনাস্থলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে তাকে উদ্ধার করে রমেক হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি করানো হয়।

[৮] এব্যাপারে কোতয়ালী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশিদ জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে আসামী মেহেদী হাসানকে রাতে গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে তাকে আদালতে নেয়া হয়। বিচারক আসামির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত