প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ এর ক্ষয়ক্ষতি আম্পানের মতো হওয়ার আশঙ্কা করছে ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর

লিহান লিমা: [২] বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি শক্তি সঞ্চয় করে সোমবার সকালে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে পরিণত হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে এই ঘূর্ণিঝড়ের বিস্তৃতি বাংলাদেশ থেকে উত্তর ওড়িশা উপকূল পর্যন্ত হবে। স্থলভাগে আছড়ে পড়ার সময় গতিবেগ হতে পারে ঘণ্টায় ১৬০-১৯০ কিলোমিটার। বিএমডি, আইএমডি

[৩]সোমবার বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, বর্তমানে এটি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৭৫ কিলোমিটার, কক্সবাজার থেকে ৬০৫, মংলা থেকে ৬৫০ এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬০৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা ঝড়ো হাওয়া আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে।

[৪]মঙ্গলবার ইয়াসের গতিবেগ থাকতে পারে ঘণ্টায় ১০০-১২০ কিমি। বুধবার সন্ধ্যায় উত্তর উড়িষ্যা, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের দক্ষিণ উপকূলে আঘাত হানতে পারে ইয়াস। আছড়ে পড়ার সময় ঘণ্টায় ১৫৫-১৬৫ কিলোমিটার বেগে বইবে ঝড়। কখনও কখনও ঝড়ের বেগ ঘণ্টায় ১৮৫ কিলোমিটারে পৌঁছে যেতে পারে। দ্য হিন্দু

[৫]ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর বলেছে, ‘এটি প্রবল ক্ষয়ক্ষতি ডেকে আনতে পারে। এর প্রভাব ঘূর্ণিঝড় টাউকটে ও আম্পানের মতো হবে।’

[৬]সমুদ্রবন্দরগুলোকে ২ নম্বর হুঁশিয়ারী সংকেত দেয়া হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে ফেরার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

[৭]পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু জায়গায় এবং খুলনা, ঢাকা এবং সিলেট বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া ও বজ্রপাত হতে পারে।

[৮] ভারত, বাংলাদেশ, মায়ানমার, ওমান, পাকিস্তান, কাতার, সৌদিআরব, শ্রীলঙ্কা-সহ ১৩টি দেশ নিয়ে গঠিত কমিটি ‘ইয়াস’ ঘূর্ণিঝড়ের নাম ঠিক করেছে। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, যে মহাসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয়, তার অববাহিকায় থাকা দেশগুলি নামকরণ করে। পারসি ভাষা থেকে আগত শব্দ ‘ইয়াস’ অর্থ দুঃখ।

সর্বাধিক পঠিত