প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] এনআইডি শাখা মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত হলে ইভিএমে ভোটগ্রহণ জটিল হবে, সিইসির কাছে লেখা চিঠিতে বললেন কর্মকর্তারা

বাশার নূরু: [২] জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন কার্যক্রম (এনআইডি) নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অধীনে না থাকলে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট পরিচালনা জটিলতা সৃষ্টি করবে বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা।

[৩] জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের পরিচালক ও বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. নূরুজ্জামান তালুকদার এবং চট্টগ্রামের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান চিঠিতে এনআইডি কার্যক্রম ইসির অধীনেই রাখার যৌক্তিকতা তুলে ধরেন।

[৪] তারা বলেন, সংবিধানের ১১৯ অনুচ্ছেদ বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি পদের ও জাতীয় সংসদের নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা প্রস্তুতকরণের তত্ত্বাবধান, নির্দেশ ও নিয়ন্ত্রণ এবং অনুরূপ নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব¡ নির্বাচন কমিশনের ওপর ন্যস্ত থাকবে। বর্তমান সরকারের অধীন ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের অংশ হিসেবে নির্বাচন কমিশন ভোটগ্রহণে ইভিএম পদ্ধতি চালু করেছে, যা সম্পূর্ণ জাতীয় পরিচয়পত্রের ডাটাবেজ নির্ভর। ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটদানে জাতীয় পরিচয়পত্রের ডাটাবেজের বিকল্প নেই।

[৫] চিঠিতে আরও বলা হয়, যদি অন্য কোনো দফতর ও বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন একইসঙ্গে ডাটাবেজ গঠনের কার্যক্রম পরিচালনা করে এতে দু’টি ডাটাবেজে জনবহুল বাংলাদেশের নাগরিকদের তথ্যের গরমিল পরিলক্ষিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। তাই গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ১১৯ অনুচ্ছেদের দফা (১) অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ভোটার তালিকা প্রস্তুতকরণের তত্ত্বাবধান, নির্দেশ ও নিয়ন্ত্রণ নির্বাচন কমিশনের হাতে থাকা যুক্তিযুক্ত। সম্পাদনা: সালেহ্ বিপ্লব

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত