প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট কী সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য

মিনহাজুল আবেদীন: [২] দেশের অন্যতম শীর্ষ স্থানীয় সংবাদপত্র দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকার সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি এখন কারাগারে আছেন।

[৩] এর আগে সোমবার সচিবালয়ের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি কক্ষে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে প্রায় পাঁচ ঘন্টা আটকে রেখে শারীরিকভাবে হেনস্থা করার অভিযোগ উঠেছে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি সরকারের গোপন নথির ছবি তুলেছেন এবং সেগুলো সরিয়ে নিতে চেয়েছেন।

[৪] এই আইনটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, এর দু’টি দিক রয়েছে। একটি হচ্ছে গুপ্তচরবৃত্তি এবং অপরটি হচ্ছে সরকারের গোপন নথি ফাঁস। তবে এই আইনের কোথাও উল্লেখ করা নেই যে সরকারি ‘গোপন’ নথি সংবাদপত্রে প্রকাশ করা যাবে না।

[৫] আইনে বলা হয়েছে, যদি কোনও ব্যক্তি রাষ্ট্রের নিরাপত্তা এবং স্বার্থের পরিপন্থী কোনও উদ্দেশ্য নিয়ে গুপ্তচর বৃত্তি করে তাহলে তার শাস্তি হবে। অর্থাৎ সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ কোনও এলাকায় গমন করে, পরিদর্শন করে বা ভেতরে প্রবেশ করে তাহলে শাস্তি হবে।

[৬] মঙ্গলবার বিবিসি বাংলায় সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তফা ফিরোজ বলেন, সচিবালয় কোনও নিষিদ্ধ জায়গা নয়। সেখানে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকারের জন্য সরকার পরিচয়পত্র দিয়েছে এবং সরকার জানে যে সেখানে সাংবাদিকরা তথ্য সংগ্রহের জন্য যাবে।

[৭] সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরশেদ বলেন, গোপনভাবে তথ্য সংগ্রহ করা তো সাংবাদিকতার অধিকার। এটা ছাড়া তো সাংবাদিকতা চলে না। অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট সাংবাদিকতা ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। সম্পাদনা: রাশিদ

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত