শিরোনাম
◈ পদ্মা সেতুর ওপর মূত্রত্যাগকারীকে খুঁজছে সিআইডি ◈ ‘শিক্ষকদের টার্গেট করে সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা চলছে’ ◈ উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা অর্থনীতিকে বিকশিত করে: প্রধানমন্ত্রী ◈ মগবাজার মোড়ে একটি ভবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ৩ ইউনিট ◈ যুক্তরাজ্যকে এক লাখ রোহিঙ্গা পুনর্বাসনের অনুরোধ জানালো বাংলাদেশ ◈ প্রয়োজনে দেশে বেকার ভাতা চালু হবে, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ◈ বিএনপির দায়িত্বহীনতা গণতন্ত্রের পথে অন্তহীন বাধা ◈ পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু শুধু হাত দিয়ে খোলা সম্ভব নয়  ◈ পদ্মা সেতুর প্রতিটি পিলারে ক্যামেরা বসছে, যানবাহনের গতি নিয়ন্ত্রণে ‘স্পিড গান’ ব্যবহার হবে ◈ সাত মাস পর দেশে ফিরলেন রওশন এরশাদ

প্রকাশিত : ১৪ মে, ২০২১, ০৪:৩১ দুপুর
আপডেট : ১৪ মে, ২০২১, ০৪:৩১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

[১] করোনা সংকট মোকবেলায় বরাদ্দ বাড়ছে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে

তাপসী রাবেয়া : [২] চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের মতো আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেট পরিকল্পনাতেও সামাজিক নিরাপত্তা খাতকে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। চলতি অর্থবছরে এ খাতে বরাদ্দ ছিল ৯৫ হাজার ৫৭৪ কোটি টাকা। ২৪ শতাংশ বাড়িয়ে ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হচ্ছে ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা।

[৩] বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ও বাংলাদেশ ইনস্টিউট অব লেবার স্টাডিজের (বিলস) গবেষণায় দেখা গেছে, করোনাভাইরাস মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে দেশে নতুন করে দেড় কোটি মানুষ দরিদ্র হয়েছেন। আর চাকরি বা কাজ হারিয়েছেন দেশের মোট শ্রমশক্তির তিন শতাংশেরও বেশি মানুষ। এ জনগোষ্ঠীকে সুরক্ষা দিতেই আসছে বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হচ্ছে।

[৪] সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় প্রতিবছর সুবিধাভোগীদের সংখ্যা ১০ শতাংশ হারে বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। তবে চলতি অর্থবছরের তুলনায় আসছে বাজেটে তা আরও বেশি বাড়ানোর প্রস্তাব করা হচ্ছে।

[৫] অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের চেয়ে নতুন বছরে এ খাতে বরাদ্দ বাড়ছে ২৪ শতাংশ। দুই দফা করোনাভাইরাস সংক্রমণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন যারা, তাদের জন্যই মূলত বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে। জানা গেছে, বরাদ্দের সঙ্গে বাড়বে উপকারভোগীর সংখ্যাও। বাড়বে অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীদের সংখ্যা, দরিদ্র মায়েদের জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতা, কর্মজীবি মায়েদের জন্য ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা, মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা, অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান, অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জন্য জীবন মান উন্নয়ন ভাতাসহ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দুর্যোগ খাতে যেসব কর্মসূচি চলমান, তার পরিধিও বাড়বে বলে জানা গেছে।

[৬] পরিসংখ্যান ব্যুরোর এক সমীক্ষা বলছে, যোগ্যদের ৪৬ শতাংশ এখনো সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির বাইরে রয়েছে। আবার এই কর্মসূচির অন্তর্ভুক্তদের মধ্যে স্বচ্ছলরাই ভাতা পান ৭৫ শতাংশ। আর এ পরিস্থিতি রাজনৈতিক কারণেই তৈরি হয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সম্পাদনা : ভিকটর রোজারিও

 

  • সর্বশেষ