প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সুপ্রীতি ধর: এই মুভি দেখার পর কেউ আর সংসার করতে চাইবে না!

সুপ্রীতি ধর: কী একটা মুভি দেখা যে শুরু করলাম, কোন পাগলে আমাকে বলছিল, কে জানে! Bonus Family। সুইডিশ সিরিজ। না পারছি সহ্য করতে, না পারছি ছাড়তে।

আমি নিশ্চিত, এই মুভি দেখার পর কেউ আর সংসার করতে চাইবে না, অথবা, আমাদের দক্ষিণ এশিয়ার মতোন সাধারণ ঘরানার জীবনযাপন করতে চাইবে সবাই।

কী এক জটিল পরিস্থিতি! নেটফ্লিক্সে আছে সাব টাইটেলসহ, আগ্রহী হলে দেখতে পারো/পারেন।

বোনাস ফ্যামিলি মানে বিশাল বড় ফ্যামিলি। দুইজন নারী-পুরুষের একত্র যাপন, বিয়ে করেনি, মেয়েটির আগেরপক্ষের ছেলেমেয়ে আছে, পুরুষটির ছেলে আছে, তো, এই দুজনের এখন বাচ্চা হবে। অন্যদিকে মেয়েটির এক্স প্রতিনিয়ত ঝামেলা পাকিয়েই যাচ্ছে, আবার ছেলেমেয়ের দায়িত্ব যেহেতু প্রতি সপ্তাহ অন্তর ভাগাভাগি হয়, তাই যোগাযোগ, সম্পর্ক আছে সবার সাথে সবার। পুরুষটির এক্স বউ তার অফিসের বসের সাথে ডেট করে, আবার এক কলিগের সাথেও, এটা মানতে পারে না এক্স স্বামী। সে প্রতিনিয়ত বাচ্চা ছেলের কাছ থেকে আপডেট নেয় আর এক্স স্ত্রীর অফিস পর্যন্ত গিয়ে অপমানের চূড়ান্ত করে। সবাই যার যার মতোন জীবনযাপন করছে, কিন্তু কেউই চাইছে না তাদের এক্সদের অন্য জীবন থাকুক।

এদিকে বাচ্চা মেয়েটি টিনএজ, পরিবারের এসব ঝামেলার মাঝে মায়ের সাথে রাগ করেই সম্পর্কে জড়ায় একজনের সাথে। ১৫ বছরের মেয়েটিকে সুরক্ষা নিয়ে জ্ঞান দিতে গিয়ে মা ঢোক গিলে বার বার, মেয়েটি তখন বলে, সে সব জানে কোথায় কী পাওয়া যায়! আমার বাঙালী মন খচখচ করে উঠে। এদিকে তার ছোট ভাইটি, যার বয়স মাত্র ১০, সে ভয়াবহ আচরণ করে সৎ বাবার সাথে, গালি ছাড়া কথা বলে না, মধ্য আঙ্গুল দেখায় কথায় কথায়। এই দেশে বাচ্চাদের কিছু বলাও যায় না। আমার তো হাত শুধু নিশপিশ করছে এটা দেখতে বসে।

কীএক্টা ছ্যাড়াবেড়া যে লাগছে সবার মাঝে। মাথা ঝিমঝিম করছে। সবাই নিয়মিত কাউন্সেলিংয়ে যায় সমস্যার সমাধান খুঁজতে। যারা কাউন্সিলর, তারা নিজেরা নিজেদের জীবন দিয়ে দেখতে চায় এদের সমস্যাটা। তারাও তাদের যৌবনে কীসব করেছে, তার আদলে দেখতে চায় বিষয়গুলো।

সবমিলিয়ে আমার নিজেরই পাগল হওয়ার দশা। আমারও মনে হয় কাউন্সেলিং লাগবে সিরিজ শেষ করার পর। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত