প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজনৈতিক প্রভাবে পিরোজপুরে আইনশৃঙ্খলার অবনতি, পৌর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদককে গুলি

বিপ্লব বিশ্বাস: [২]রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে পিরোজপুরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি দিন দিন অবনতির দিকে যাচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে পিরোজপুর জেলা শহরে এই পরিস্থিতির জন্ম নিয়েছে। গতকাল মধ্যরাতেও প্রতিপক্ষ দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পালটা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পিরোজপুর পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহাবুব শুভর উপরে গুলির ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেছেন স্থানীয় নেতারা। এ সময় বোমা হামলার ঘটনাও ঘটে বলে তারা জানান। তবে বোমা দুইটির বিস্ফরণ হয়নি।

[৩] এর দুদিন আগে পিরোজপুরে পরপর ৫ জায়গায় দুগ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। তাতে মিরাজ নামে এক কর্মী মারাত্মক জখম হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

[৪]এ বিষয়ে পিরোজপুর সদর থানার ওসি নুরুল ইসলাম বাদল জানান, ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং ঘটনাস্থল থেকে বোমা সাদৃশ্য দুইটি বস্তু উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এ দুটো বোমা বা ককটেল নাকি অন্যকিছু তা পরীক্ষার পরেই জানা যাবে। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয় হবে। জানা যায়,সোমবার রাত ১১ টার দিকে পিরোজপুর পৌর শহরের উকিলপাড়া এ গুলি ও বোমা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

[৫] পিরোজপুর পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহাবুব শুভ জানান, সোমবার রাতে স্থানীয় যুবলীগের নেতা-কর্মীদের নিয়ে পৌর এলাকার ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে যুবলীগের কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার লক্ষ্যেই বিভিন্ন ওয়ার্ডে তিনি সহ পৌর যুবলীগের নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন ওয়ার্ডে যান। পরে রাত ১১ টার দিকে শহরের উকিলপাড়াস্থ তার বাসার সামনে এসে তার সাথে থাকা নেতা-কর্মীদের বিদায় দেয়ার সময়- হঠাৎ করে কয়েকটি মটোরসাইকেল এসে তার বাসার সামনে থামায়। পরে একটি মটোরসাইকেল থেকে পিরোজপুর শহরের চিহ্নিত সন্ত্রাসী সোহাগ শিকদার তাকে হত্যার উদ্দ্যেশে সিলভার কালারের একটি পিস্তল বের করে তার দিকে পরপর এক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। শুভ রাস্তায় লুটিয়ে পড়লে গুলি তার শরীরে লাগেনি। এ সময় তার সাথে থাকা নেতা-কর্মীরা এগিয়ে এলে, অন্য মটোরসাইকেলে থাকা সন্ত্রাসীরা তাদের লক্ষ্য করে পরপর দুটি হাত বোমা নিক্ষেপ করে পলিয়ে যায়।

[৬] শুভ আরো অভিযোগ করে জানান, এ ঘটনার প্রায় ১০ মিনিট পর সন্ত্রাসী সোহাগ ফোনে তাকে হত্যার চেষ্টা করার কথা স্বীকার করে বলে “বোমা ফোটেনি তবে গুলি তো ফুটেছে”। এর আগে সন্ত্রাসী সোহাগ সিকদার অস্ত্র সহ শহরের মটোরসাইকেল মহড়া দেয়।

[৭] অভিযোগের কথা জানিয়ে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম টিটু জানান, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহাবুব শুভর উপর হামলার কিছু সময় আগে শহরের টাউন স্কুল মোড়ে তার মটরসাইকেল থামিয়ে সন্ত্রাসী সোহাগ সিকদার জানাতে চায়, ফয়সাল মাহাবুব শুভ কোথায় আছে। এ সময় সোহাগ সিকদারের সাথে সিলবার কালারের একটি পিস্তল দেখা গেছে বলে তিনি দাবি করেন।
[৮] পিরোজপুর পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম মিরণ জানান, সন্ত্রাসী সোহাগ সিকদারের নামে বিগত দিনে কয়েকটি মামলা রয়েছে। এছাড়া গত দুইদিন আগে তার নামে সদর থানায় আরেটি মামলা হয়েছে। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন তাকে গ্রেপ্তার না করার কারনেই এ ঘটনা ঘটেছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় ক্ষমতাশীল এক ব্যক্তির ছত্রছায়ায় থাকার কারণেই পুলিশ সন্ত্রাসী সোহাগ সিকদারকে গ্রেপ্তার করছে না।

সর্বাধিক পঠিত