প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনা রোগীদের চিকিৎসায় বিএসএমএমইউতে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাংক স্থাপনের নির্দেশ: ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ

শাহীন খন্দকার: [২] করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় ২০ হাজার লিটার ক্ষমতা সম্পন্ন ভ্যাকুয়াম ইনসুলেটেড ইভাপোরেটর স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

[৩] মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) বি-ব্লক, কেবিন ব্লক, সি ব্লকসহ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস পরিদর্শন শেষে তিনি এই নির্দেশ দেন। এই সময় তিনি বলেন, কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা আগে থেকেই নিশ্চিত করতে হবে। আশা করি, বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য অক্সিজেনের সংকট হবে না। লিকুইড অক্সিজেন ৫ হাজার লিটার থেকে বৃদ্ধি করে ২৫ হাজার লিটারে উন্নীত করা হবে। এসময় তিনি ভারতের ডাবল মিউটেন্ট ভ্যারিয়েন্ট যাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য কমপক্ষে দুই সপ্তাহ বাংলাদেশের সাথে ভারতের সীমান্ত সমূহ বন্ধ রাখার সরকারের সিদ্ধান্তকে সময়োপযোগী বলে উল্লেখ করেন এবং ভারত থেকে যারা দেশে আসেন তাদের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করার কথাও উল্লেখ করেন। মাননীয় উপাচার্য মহোদয় এসময় হাসপাতাল ও ক্যাম্পাসে অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে সড়কের সম্প্রসারণ ও ক্যাম্পাসের সৌন্দর্যবর্ধণের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।

[৪] এদিকে মঙ্গলবার উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ তাঁর কার্যালয়ে প্রশাসনিক সভা এবং ডা. মিল্টন হলে দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের সহায়তায় নির্মাণাধীন সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালের বিষয়ে আলাদাভাবে ২টি সভায় অংশগ্রহণ করেন। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. এ কে এম মোশাররফ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালের প্রকল্প পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. জুলফিকার রহমান খান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

[৫] এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কনভেনশন সেন্টারে চলমান লকডাউনের মাঝেও দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন ১ হাজার ৩১৬ জন । ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন ৫৪ হাজার ৫ শত ৬৪ জন এবং আজ ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন ২৩ হাজার ৬ শত ২০ জন। বেতার ভবনের পিসিআর ল্যাবে গতকাল ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৯ শত ৩০ জনের কোভিড-১৯ টেস্ট করা হয়েছে। বেতার ভবনের ফিভার ক্লিনিকে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত ৯২ হাজার ২ শত ৭০ জন রোগী চিকিৎসাসেবা নিয়েছেন।

[৬] অন্যদিকে করোনা ইউনিটে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ৮ হাজার ৩ শত ৪১ জন রোগী সেবা নিয়েছেন। ভর্তি হয়েছেন ৪ হাজার ৭ শত ১৭ জন। সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন ৩ হাজার ৯ শত ৪৪ জন। বর্তমানে ভর্তি আছেন ১৪৫ জন রোগী এবং আইসিইউতে ভর্তি আছেন ১১ জন রোগী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১২ জন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত