প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লকডাউনের কারণে সংক্রমণের হার কমেছে: অধ্যাপক সানিয়া তাহমিনা

মিনহাজুল আবেদীন: [২] রোববার বিবিসি বাংলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক আরও বলেন, লকডাউনে মানুষ যেভাবেই স্বাস্থ্যবিধি মানুক, যত কমই মানুক না কেন, এর মাধ্যমে ন্যুনতম যে সুফল পাওয়া যায়। তার প্রতিফলন আমরা দেখছি সংক্রমণ আর মৃত্যুর হারের পরিসংখ্যানে।

[৩] মহাপরিচালক বলেন, শপিংমল ও গণপরিবহন কয়েকদিন বন্ধ ছিলো বলেই সংক্রমণটা কমেছে। এখন দোকানপাট খুলে দেয়ায় সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাবে, রোগ বাড়বে। সুতরাং রোগ বাড়লে মৃত্যুও বাড়বে।

[৪] অধ্যাপক তাহমিনা বলেন, গত কয়েক মাসে দেশে করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্টের আবির্ভাব হয়েছে। এতে মানুষের ঝুঁকি বেড়েছে। ইতোমধ্যে ভারতের নতুন ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে মানুষের মধ্যে উদ্বেগ ও দুশ্চিন্তা তৈরি হয়েছে।

[৫] তিনি বলেন, যে পরিমাণ জিনোম সিকোয়েন্সিং ধারাবাহিকভাবে করে সেটা শনাক্ত করতে হয়, সে সক্ষমতা বাংলাদেশে এখন নেই। কারণ যেসব ল্যাবে এই পরীক্ষাগুলো হয়, তার অধিকাংশই এখন করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় ব্যস্ত রয়েছে।

[৬] তিনি আরও বলেন, গণপরিবহন অর্ধেকের বেশি আসনে যাত্রী নেয়া, দাঁড়িয়ে যাত্রী নেয়া, বেশি ভাড়া নেয়া এসব বন্ধ করতে হবে। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে, মাস্ক পরে পরিবহন চালানোর দিকে কড়া নজর দিতে হবে। সম্পাদনা: রাশিদ

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত