প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কামরুল হাসান মামুন: শিক্ষার সত্যিকার আলো ছড়ায়নি বলেই গ্রামে গ্রামে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে এখনো মানুষ ঝগড়া করে

কামরুল হাসান মামুন: মাত্রই আমার নেত্রী আমার অহংকার নামের একটি পেজ থেকে একটি স্পন্সরড বিজ্ঞাপন দেখলাম। সেখানে শেখ হাসিনা সরকারের সাফল্যের একটি লিস্ট প্রকাশ করে যেমন (১) পদ্মা সেতু (২) মেট্রো রেল (৩) রামপাল কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প (৪) স্যাটেলাইট (৫) পোশাক শিল্প (৬) কৃষি উন্নয়ন (৭) যুদ্ধাপরাধীদের বিচার। এতো কিছুর মাঝে তাদের দেওয়া এই লিষ্টে শিক্ষা নেই। আমি অনেকদিন ধরেই বলে আসছি এই সরকারের প্রায়োরিটির মধ্যে শিক্ষা পরে না তাই শিক্ষায় তেমন বিনিয়োগ নেই। সহজে বাহবা নেওয়ার জন্য বাজেট বরাদ্দ জিডিপির ২ শতাংশ এর আশেপাশে রেখে কেবল সংখ্যা বাড়াচ্ছে।

এতে মানের ঘাটতি হচ্ছে। শিক্ষার সত্যিকারের উন্নয়ন চাইলে বাজেটে জিডিপির ন্যূনতম ৫.৫ শতাংশ বরাদ্দ দিতো। জিডিপির ন্যূনতম ৫.৫ শতাংশ বরাদ্দ দিলেও এর সুফল আসবে দীর্ঘ মেয়াদে ফলে কোনো সরকারই শিক্ষায় উন্নতির চিন্তা করেনি। তবে আমি এই ক্ষেত্রে বিজ্ঞাপনদাতাদের ধন্যবাদ দেই যে তারা অন্তত এইটুকু সততা দেখিয়েছেন যে এই লিষ্টে শিক্ষাকে রাখেনি। অথচ একটি দেশের টেকসই উন্নয়নের প্রধানতম নিয়ামক হলো শিক্ষা। শিক্ষার উন্নয়ন ব্যতীত একটি দেশ কখনো সত্যিকারের উন্নয়ন সম্ভব না। শিক্ষায় উন্নতি ব্যতীত উন্নয়ন কেবলই বাকোয়াজ। শিক্ষায় উন্নয়ন ঘটিয়েই কেবল বৃহত্তর জনগুস্টির মননের উন্নয়ন সম্ভব।

এই দেশে যেই হারে ধর্মান্ধতা বাড়ছে, যেই হরে নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, মদকাসক্ততা, ক্রাইম ইত্যাদি বাড়ছে তাতে এইটা স্পষ্ট মানুষ সত্যিকারের শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে না। শিক্ষার সত্যিকার আলো ছড়ায়নি বলেই গ্রামে গ্রামে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে এখনো মানুষ ঝগড়া করে। দেশে সম্পত্তি নিয়ে হাজার হাজার মামলা। মানুষ শিক্ষিত হলে এইসব হতো না। উন্নয়নের এই লিস্টে ডিজিটাল বাংলাদেশও বলে নাই। বলবে কিভাবে? যেই দেশের ইন্টারনেট গতি আফ্রিকার দেশ এমন কি দক্ষিণ এশিয়ার দেশের মধ্যেও তলানিতে। আর ইন্টারনেট খরচ? তার অবস্থা আরো খারাপ। এইখানেও বিজ্ঞাপনদাতারা সততা দেখিয়েছে। ফেসবুক থেকে শাহিন

সর্বাধিক পঠিত