প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আরিফুজ্জামান তুহিন: ভারতকে অক্সিজেন দিয়ে মানুষের পাশে থাকুন মাননীয় সরকার প্রধানগণ

আরিফুজ্জামান তুহিন: দিল্লীতে অক্সিজেন নেই। অক্সিজেন নেই গুজরাট, উত্তর প্রদেশ, হরিয়ানাতে। হাসপাতালের বাইরে বিজ্ঞপ্তি টানানো হচ্ছে, এ হাসপাতালে অক্সিজেন নেই। দিল্লীতে অক্সিজেনের অভাবে মানুষ মারা যাচ্ছে। ভারতের দিল্লীর ম্যাক্স হেলথ কেয়ার তাদের টুইটারে লিখেছে, আর মাত্র এক ঘন্টার অক্সিজেন সরবরাহ আছে আমাদের হাসপাতালে। গতকাল রাত ১টা খেকে অক্সিজেন পাবে এমন নিশ্চয়তা দেয়া হলেও সকাল ৮.১৩ মিনিটে করা ওই টুইটে অক্সিজেন না পাবার বাস্তবতা ফুটে ওঠে। গুজরাট, উত্তর প্রদেশ ও হরিয়ানাতে সব থেকে বেশি অক্সিজেন ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এর মধ্যে গুজরাট ও উত্তর প্রদেশের অবস্থা বেশি খারাপ।

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত বৃস্পতিবার বলেছেন, ভারতকে চীন কোভিডর বিরুদ্ধে লড়াই করতে সব ধরনের সহায়তা দেবে। তিনি আরও বলেছেন, কোভিড মহামারি সারা দুনিয়ার মানবজাতির কমন শত্রু। দুনিয়ার সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে এর সঙ্গে যুদ্ধ করতে হবে। বাংলাদেশের যদি অক্সিজেন বাড়তি থাকে তাহলে ভারতকে জরুরি ভিত্তিতে অক্সিজেন  সরবরাহ করা উচিত। খুলনায় অক্সিজেনের বড় খারখানা আছে। সেখান থেকে পশ্চিমবাঙ্গলায় অক্সিজেন পাঠানো হোক, যদি আমাদের বাড়তি থাকে। সীমান্ত রাজ্য পশ্চিমবাঙ্গলায় দিলেও লাভ আছে, তাহলে পশ্চিমবাঙ্গলা অক্সিজেন ভারতের অক্সিজেন উৎপাদক কেন্দ্রগুলো থেকে নেবে না। এতে অক্সিজেনের চাপ কমে কিছুটা। চীনের এগিয়ে আসা, এগিয়ে আসা উচিত পাকিস্তানের। ভারত সীমান্তে পাখির মত গুলি করে মানুষ মারে, বাংলাদেশকে পানিতে শুকিয়ে মারে, রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ করে-সব ঠিক আছে।

কিন্তু সবার আগে মানুষ। আর এই যে সাধারণ মানুষ অক্সিজেনের কারণে মারা যাচ্ছে, তারা এসব বিদেশ নীতি বানায় না। এগুলো ভিন্ন জায়গা থেকে আসে। মানুষ দুনিয়াতে বেঁচে থাকতেই অক্সিজেন পাবে না, এ হতে পারে না। এই দৃশ্য ঠিক নেয়া যাচ্ছে না। চীন, পাকিস্তান, নেপাল, বাংলাদেশ ভারতকে এই মুহূর্তে সহায়তা দিক। মানুষ বাঁচলে রাজনীতি ও যুদ্ধটা পরে করা যাবে। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত