প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজশাহীতে নকল এন্টিবায়েটিক ও গ্যাসের ওষুধ তৈরি কারখানার সন্ধান, মূলহোতা আটক

মঈন উদ্দীন: [২] জেলায় একটি নকল ওষুধের কারখানার সন্ধান পেয়ে অভিযান চালিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

[৩] নগরীর ভদ্রা এলাকায় আনিসুর রহমান ওরফে আনিস (৪২) নামের এক ব্যক্তি নিজের বাড়িতেই এই কারখানা গড়ে তুলেছিলেন। দুই বছর ধরে একটি চক্র এ নকল ওষুধ তৈরি করতো।

[৪] শুক্রবার রাতে নগরীর ভদ্রা জামালপুর এলাকা থেকে নকল ওষুধ কারখানায় অভিযান চালিয়ে চক্রটিকে আটকের পর এমন তথ্য পেয়েছে পুলিশ। ওই চক্রটি নকল দামি এন্টিবায়েটিক ও গ্যাসের ওষুধও বিপুল পরিমাণে বাজারজাত করেছে। এ সময় প্রায় ৭০লাখ টাকা মূল্যর ওষুধ জব্দ করা হয়।

[৫] গ্রেপ্তারকৃত চক্রের মূলহোতা শফিকুল ইসলাম আনিস পুলিশকে জানিয়েছে, বিপুল পরিমাণ দামি ওষুধ বাজারজাত করেছে তারা গত দুই বছরে। এখনো অনেক ওষুধ বাজারে রয়েছে রাজশাহীসহ বিভিন্ন বাজারে।

[৬] রাজশাহী মহনাগর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, এসব ওষুধ বাজার থেকে উত্তোলনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এবং জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

[৬] সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এখানে বিভিন্ন প্রকার প্রতিষ্ঠিত ওষুধ কোম্পানীর মোড়কে নকল ওষুধ প্রক্রিয়াজাত করে রাজশাহী মহানগরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ডিলারদের মাধ্যমে বাজারজাত করছেন বলে জানতে পারে পুলিশ। অভিযানের সময় কারখানা হতে ওষুধ তৈরির মেশিন ও সরঞ্জামাদীসহ বিপুল পরিমাণ ওষুধ উদ্ধার করে।

[৭] যার মধ্যে রয়েছে ফয়ার কোম্পানির নকল সেকলো, এস.বি-ল্যাবরেটরীজ কোম্পানির নকল চড়বিৎ-৩০, এস.বি-ল্যাবরেটরীজ কোম্পানির নকল চড়বিৎ-৩০, এস.বিল্যাবরেটরীজ কোম্পানির নকল চড়বিৎ-৩০ (সবুজ রং), নাভানা কোম্পানির নকল পিজোফেন, রিলায়েন্স কোম্পানির নকল ইলিক্সিম, রিলায়েন্স কোম্পানির নকল রিলাম, স্কয়ার কোম্পানির নকল সেকলোর ও ভেজাল ওষুধ তৈরির মেশিন বিলিস্টার। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত