প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চলচ্চিত্রের পর্দা থেকে অনুপস্থিত থাকার কারণ জানালেন আমিন খান

ইমরুল শাহেদ: তিনি চলচ্চিত্রের পর্দায় অনুপস্থিত থাকলেও একটি বাণিজ্যিক কোম্পানিতে নির্বাহী পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন। সেখান থেকে বিভিন্ন পণ্যের পরিকল্পনা ও নির্মাণ করছেন। তিনি বলেন, ‘সেটাও চলচ্চিত্রের মতোই সৃজনশীল কাজ এবং কাজটা আমি আনন্দের সঙ্গেই করছি।’ চলচ্চিত্রের পর্দায় অনুপস্থিতির কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘আমাকে যখন বলা হয় আমি চলচ্চিত্রে ফিরব কবে, তখন আমার হাসি পায়।

আমি চলচ্চিত্র ছাড়লাম কবে যে ফিরে আসব। আমিন খান নামটি যতদিন থাকবে, ততদিন আমি চিত্রনায়ক হিসেবেই পরিচিত থাকব। এখন আমি যা করছি সেটাও করতে পারছি আমার সিনেমার পরিচিতির কারণেই। আমার প্রতিটি রন্ধ্রে রন্ধ্রে আছে সিনেমা। সুতরাং এ নিয়ে কোনো বিতর্ক থাকতে পারে না। আমার বড় পর্দায় অনুপস্থিতির কারণ হলো চরিত্র সংকট। যখন আমি ক্যারিয়ার শুরু করেছি তখন থেকে যে ফর্মূলায় ছবি নির্মিত হতে শুরু করেছে, এখন পর্যন্ত সেই ফর্মূলাই চলমান রয়েছে। চলচ্চিত্র নিয়ে কোনো গবেষণা নেই। প্রযুক্তির পরিবর্তনের সঙ্গে কেউ নিজেকে বদলে নিচ্ছে না। গৎ ভেঙ্গে কেউ বের হতে চাইছে না। কেউ ভালো চিত্রনাট্যের একটি গল্পে কাজ করার কথা কখনো বলেনি। কিভাবে কি চরিত্রে কাজ করব’।

তিনি বলেন, ‘আমি প্রতিদিন রাতেই একটি করে ছবি দেখি। এর মধ্যে দেশি এবং বিদেশি – দুই ধরনের ছবিই আছে। সম্প্রতি একটি ইরানি ছবি দেখলাম। তাদের গল্প বলার ভঙ্গি, প্রযুক্তির ব্যবহার, কি অসাধারণ চিত্রগ্রহণ – ছবি দেখতে দেখতে মনে হলো তারা বর্তমান সময়কেও অতিক্রম করে গেছে। চিত্রনাট্যের বুনোট মনোমুগ্ধকর। আর আমরা সেই পুরনো ফর্মূলা নিয়েই পড়ে আছি।’
তিনি বলেন, ‘আমি সম্প্রতি দুটি বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণ করেছি। কোনোটার শুটিংই দুই দিনের বেশি হয়নি। একটিতে খরচ হয়েছে ১৭ লাখ টাকা এবং একটি খরচ পড়েছে ২১ লাখ।

কিন্তু আমার বুঝে আসেনা কিভাবে একটি আড়াই ঘন্টার ছবি ২০ বা ২৫ লাখ টাকায় হয়। মানুষ এখন অনেক সচেতন। অ্যাপসের জন্য এসব ছবি হলেও মানুষতো ডাটা খরচ করেই ছবিগুলো দেখবে। তাহলে তারা ডাটা খরচ করে কি দেখছে সেটা কি তারা বুঝে না? নেটফ্লিক্সে আমিও ছবি দেখি – দেখি নিজেকে আপডেট রাখার জন্যই। তাহলে যেনতেনপ্রকরেণ ছবি দেখতে আমি রাত জাগব এবং ডাটা খরচ করব কেন?’

সর্বাধিক পঠিত