শিরোনাম
◈ ইউক্রেন যুদ্ধে সরাসরি জড়াতে পারে যুক্তরাষ্ট্র! ◈ শরীরে স্লোগান, জ্বালানি ও নিত্য পণ্যের দাম কমানোর দাবি ◈ কেরানীগঞ্জের বিসিক শিল্প এলাকায় প্লাস্টিক কারখানায় আগুন ◈ ভারতের ৭ রাজ্যে পুরুষের তুলনায় শয্যাসঙ্গী বেশি নারীর ◈ গাজীপুরে শিক্ষক দম্পতির মৃত্যুতে হত্যা মামলা দায়ের ◈ অটো পাইলট চালু করে ঘুমিয়ে পড়লেন পাইলট, অতঃপর যা ঘটলো ◈ ভারতকে দিয়েই কী তাহলে আওয়ামী লীগ সরকার দাঁড়িয়ে আছে? ◈ ইসরাইলের সঙ্গে উত্তেজনা, ইহুদি এজেন্সি বন্ধ করে দিচ্ছে রাশিয়া ◈ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য ব্যক্তিগত, ভারতকে অনুরোধ করেনি আওয়ামী লীগ ◈ মিডিয়াকে সহনশীল হওয়ার অনুরোধ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল, ২০২১, ০৩:০৯ দুপুর
আপডেট : ২৩ এপ্রিল, ২০২১, ০৩:০৯ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

[১] কালকিনিতে আলোচিত স্বামী-স্ত্রী হত্যার মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

এইচ এম মিলন: [২] মাদারীপুরে কালকিনির আলোচিত স্বামী-স্ত্রী খুনের ঘটনায় প্রধান পরিকল্পনাকারী আশরাফুল মোল্লাকে (৩৯) গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিকেশন (পিবিআই)।

[৩] বৃহস্পতিবার বিকেলে নড়াইলের সদর উপজেলার শৈলপুর থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিকেশন গোপালগঞ্জ জেলার একটি টিম। পরে আশরাফুলকে নড়াইল সদর থানায় গ্রেফতার দেখিয়ে গোপালগঞ্জে নিয়ে আসা হয়।

[৪] গ্রেফতারকৃত আশরাফুল নড়াইল সদর উপজেলার মধ্যপল্লী এলাকার আকবর মোল্লার ছেলে।

[৫] পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গোপালগঞ্জ জেলার এসআই শেখ আল আমিন জানান, গত ৪ এপ্রিল নিখোঁজ হন মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের সস্তাল গ্রামের মোয়াজ্জেম সরদার ও তার স্ত্রী মাকসুদা বেগম।

[৬] পরে পরিবারের পক্ষ থেকে ৫ এপ্রিল কালকিনি থানায় অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে একটি অপহরণ মামলা করা হয়। নিখোঁজের চারদিন পর গত ৯ এপ্রিল রাজারচরের একটি খালের কচুরীপানার ভেতর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ওই স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করে কালকিনি থানা পুলিশ। পরে মামলাটির দায়িত্ব দেয়া হয় পিবিআইকে।

[৭] তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ঘটনার ১৩ দিন পর নড়াইল থেকে এ ঘটনার প্রধান পরিকল্পনাকারী আশরাফুলকে গ্রেফতার করে পিবিআই।

[৮] এ সময় নিহত স্বামী-স্ত্রীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও উদ্ধার করা হয়েছে। তবে পিবিআই ধারণা করছে, সম্প্রতি কৃষি কাজ করতে অপরিচিত কয়েকজন যুবক ওই এলাকায় আসে। পরে মোয়াজ্জেমের ঘরে অবস্থান নেয় তারা। পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষ ওই অপরিচিত যুবকদের দিয়ে এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বিস্তারিত জানা যাবে বলে জানিয়েছে পিবিআই।

[৯] উল্লেখ্য, নিহত মোয়াজ্জেম ও মাকসুদার এক ছেলে ও পাঁচ মেয়ে রয়েছে।নিহতরা ২০২০ সালে ওই এলাকায় ঘটে যাওয়া জিয়াবুল মোল্লা হত্যা মামলার সাক্ষী ছিলেন বলে থানা পুলিশ জানায়।

  • সর্বশেষ