প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] অবশেষে অনিয়ম স্বীকার করলেন মানিকছড়ি উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা

মোবারক হোসেন:[২] খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলাধীন ৪টি ইউনিয়ন পরিষদের অনুকূলে ভিজিডি কর্মসূচির আওতায় চলতি ২০২১-২০২২ চক্রের বরাদ্ধে চলতি এপ্রিল মাসে প্রায় ৪৪ মেট্রিক টন আতপ চাল উপ-বরাদ্ধ প্রদান করা হয়। যা উপজেলার ১,৪৬৪ জন সুবিধাভোগীর মাঝে ৩০ কেজি করে বিতরণের সরকারি নির্দেশনা রয়েছে।

[৩] কিন্তু ভিজিডি’র বরাদ্ধকৃত খাদ্য শস্যের ছাড়পত্রের (ডি.ও) তথ্য গোপন করে আতপ চাল এর পরির্বতে সিদ্ধ চাল ছাড় দেওয়ার ঘটনায় তোলপাড় চলছে পুরো উপজেলা জুড়ে। আর এ অনিয়মের সঙ্গে পরিপূর্ণ সম্পৃক্ততা রয়েছে মানিকছড়ি খাদ্যগুদামের ওসিএলএসডি মোঃ শামিম উদ্দিনের। গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর মানিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রাথমিক তদন্ত শেষে আতপের স্থলে সিদ্ধ চাল সরবরাহের সত্যতা পেয়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ওসিএলএসডিকে ৩ কর্মদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেছেন।

[৪] উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সোমবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে তাদের দুইজনকে এ নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। জানা যায়, অভিযুক্ত ওসিএলএসডি মোঃ শামিম উদ্দিন সরকারি বরাদ্দকৃত চাল মোটা অংকের অর্থের বিনিময় কালোবাজারে বিক্রি করে কম দামী ও নিম্নমানের পঁচা চাল খাদ্য গুদাম থেকে বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করেন।

[৫] অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে অভিযুক্ত মানিকছড়ি খাদ্যগুদামের ওসিএলএসডি মোঃ শামিম উদ্দিনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে, তিনি অভিযোগের স্বপক্ষে কোনো প্রকার কাগজপত্র প্রদর্শন করতে না পেরে অবশেষে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে মানিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে কারণ দর্শানোর লিখিত জবাব দাখিল করেছেন বলেও জানান অভিযুক্ত ওসিএলএসডি মোঃ শামিম উদ্দিন।

[৬] মানিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার তামান্না মাহমুদ সাংবাদিকদের জানান, নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে ওসিএলএসডি কর্তৃক প্রদত্ত কারণ দর্শানোর লিখিত জবাব পেয়েছেন। লিখিত জবাবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সচিবদের অনুরোধেই তিনি খাদ্যগুদাম থেকে আতপ ও সিদ্ধ চাল দিয়েছেন মর্মে সত্যতা স্বীকার করেছেন।

[৭] একইসাথে অনাকাংক্ষিত এ বিষয়টির জন্য তিনি ক্ষমাপ্রার্থী বলেও উল্লেখ করেছেন। এদিকে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্তৃক অপর একটি গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছেন। বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। সম্পাদনা:অনন্যা আফরিন

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত