প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভারতের কালোবাজারে বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশে তৈরি রেমডিসিভির, দাম ১৮ হাজার রুপি

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] উদ্ধার হওয়া ওষুধগুলো বাংলাদেশে তৈরি। সেগুলো কালোবাজারে প্রতি পিস ২০ হাজার রুপি পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছিল। কালোবাজারিদের কাছ থেকে উদ্ধার করা ওষুধগুলোর গায়ে ‘রেমিভির ১০০’ লেখা ছিল, যা রেমডেসিভির ইনজেকশনের একটি ব্র্যান্ড। আর এটি উৎপাদন করে বাংলাদেশের এসকেএফ ফার্মাসিউটিক্যালস। দ্য স্টেটসম্যান

[৩] ভারতীয় পুলিশ জানিয়েছে, কিছু লোক বেআইনিভাবে চড়া দামে রেমডেসিভির বিক্রির চেষ্টা করছে বলে খবর পায় তারা। তখন ক্রাইম ব্রাঞ্চ ছদ্মবেশী ক্রেতা সেজে কালোবাজারিদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। চুক্তি হয়ে গেলে এক পুলিশ সদস্য সাদা পোশাকে ওষুধ আনতে যান। তার হাতে একটি ইনজেকশন তুলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিক্রেতা আটক করা হয়। টাইমস অব ইন্ডিয়া

[৪] ক্রাইম ব্রাঞ্চের এসপি গোপাল ধাকাড় জানান, আটক ব্যক্তির নাম সামি খা তিনি ১৮ হাজার রুপিতে রেমডেসিভির বিক্রি করার চেষ্টা করছিলেন। অথচ একদিন আগেই ভারতীয় সরকার এর দাম ৮০০ থেকে সর্বোচ্চ ৩ হাজার ৪৯০ রুপি নির্ধারণ করে দিয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, তারা সামি খা’র তিন সহযোগী আখলাখ খান নোমান খান ও এহসান খানকেও গ্রেফতার করেছে। এদের মধ্যে এহসান খান পেশায় চিকিৎসক।

[৫] অভিযুক্তরা জানিয়েছেন, মূলত নোমান খানই রেমডেসিভির ইনজেকশন এনেছিলেন। তার কাছ থেকে অন্য তিনজন প্রতি পিস সাত হাজার রুপি করে কিনে নেন এবং সেগুলো অন্তত ১৮ হাজার রুপিতে বেচতে চাচ্ছিলেন।

[৬] ভারতীয় পুলিশ জানিয়েছে, ওষুধগুলো বৈধ পথে বাংলাদেশ থেকে আমদানি হয়েছিলো নাকি আন্তর্জাতিক কালোবাজারি চক্রের হাত ঘুরে এসেছে তা তদন্ত করা হচ্ছে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত