প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিলেটে করোনায় মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে

আবুল কাশেম রুমন: সিলেটে প্রতিদিন করোনা রোগীর মৃত্যুর হচ্ছে। দৈনিক এ সংক্রামনে  ২/৩ জন করে মৃত্যুর মিছিলে যোগ দিচ্ছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে বিভাগে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩১৪ জনে। একই সময়ে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ১৩০ জনের।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. সুলতানা রাজিয়া স্বাক্ষরিত কোভিড-১৯ কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশনের দৈনিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তদের নিয়ে সিলেট বিভাগে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ১৯ হাজার ৫৬৪ জনে। যাদের মধ্যে সিলেট জেলায় ১২ হাজার ৪৩৩ জন, সুনামগঞ্জে ২ হাজার ৬৭৫ জন, হবিগঞ্জ জেলায় ২ হাজার ২৩৪ জন ও মৌলভীবাজারে ২ হাজার ২২২ জন।
গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তদের ৮৯ জনই সিলেট জেলার বাসিন্দা। এছাড়া বিভাগের সুনামগঞ্জে ৬ জন, হবিগঞ্জে ৩ জন ও মৌলভীবাজার জেলায় ১৪ ও ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ১৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করা ৩ জনের সকলেই সিলেট জেলার বাসিন্দা। এ নিয়ে বিভাগে মৃত্যুবরণ করা মোট রোগীর সংখ্যা ৩১৪ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলার ২৪৪ জন, সুনামগঞ্জে ২৬ জন, হবিগঞ্জে ১৮ জন এবং মৌলভীবাজারের ২৬ জন।
এদিকে, সিলেটের চার জেলা মিলে ৩১৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। যাদের ৩০০ জনই সিলেট জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে, সুনামগঞ্জে ৩ জন, হবিগঞ্জে ১২ জন ও ৩ জন মৌলভীবাজারে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে ৯৫ জনকে নতুন করে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। যাদের ৯৪ জনই সিলেট জেলার বাসিন্দা ও একজন মৌলভীবাজার জেলায়।

একইদিনে সিলেট বিভাগে নতুন করে আরও ১২৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। যাদের মধ্যে ৮৬ জন সিলেট জেলার বাসিন্দা, ২৩ জন সুনামগঞ্জ জেলার, হবিগঞ্জের একজন ও মৌলভীবাজার জেলার ১৭ জন। এনিয়ে বিভাগে করোনা থেকে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা ১৭ হাজার ৫৪৫ জন। যাদের মধ্যে সিলেট জেলায় ১১ হাজার ১৭৩ জন, সুনামগঞ্জে ২ হাজার ৫৭৭ জন, হবিগঞ্জ জেলায় ১ হাজার ৭৬৮ জন ও মৌলভীবাজারে ২ হাজার ২৭ জন।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, স্ব্যস্থ্যবিধি মানতে আরো সচেতন না হলে সিলেটে করোনা পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ আকার ধারন করতে পারে। এতে বড় ধরনের মানবিক সংকট দেখা দিতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত