প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাংলাদেশ থেকে রেমডেসিভির আমদানি করতে চান ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী

লিহান লিমা: [২] ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন দেশটির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ডিভি সদানন্দ গৌড়াকে লেখা চিঠিতে বাংলাদেশ থেকে রেমডেসিভির আমদানি করার অনুমতি চেয়েছেন। এনডিটিভি

[৩]চিঠিতে তিনি বলেন, টিকাদান কর্মসূচী ও হার্ড ইমিউনিটির ওপর ভরসা রেখে পূর্বে মনে করা হয়েছিলো করোনার দ্বিতীয় ঢেউ তেমন মারাত্মক হবে না। কিন্তু বর্তমানে সংক্রমণ ও হাসপাতালে ভর্তি তীব্রহারে বেড়েছে। এই অবস্থায় জটিল রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত রেমডেসিভিরেরও রাজ্যে সংকট দেখা গিয়েছে।

[৪]চিঠিতে ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ভারতে যেসব সব কোম্পানি ওই ওষুধ তৈরি করে, তারা চাহিদা মেটাতে পারছে না। আমরা বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালের সঙ্গে ৫০ হাজার ভায়াল নিয়ে কথাবার্তা চূড়ান্ত করেছি। তাই আমার অনুরোধ, আমাদের কোম্পানিটির কাছ থেকে ওষুধ আমদানির অনুমতি দেওয়া হোক।’

[৫]ভারতের ন্যাশনাল ক্লিনিক্যাল ম্যানেজমেন্ট প্রটোকল করোনার চিকিৎসায় রেমডেসিভিরকে তালিকাভুক্ত করেছে। হাসপাতালে ভর্তি বয়স্ক, শ্বাসকষ্টে ভোগা জটিল রোগীদের এই ইনজেনকশন প্রয়োগ করা হয়।

[৬]এর আগে সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ায় অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে রেমডেসিভির রপ্তানি নিষিদ্ধ করে ভারত। এই মুহুর্তে ভারতের ২০টি প্ল্যান্টে প্রতিদিন গড়ে দেড় লাখ ঔষধ তৈরি হচ্ছে, যেটিকে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ৩ লাখের মধ্যে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। রেমডেসিভিরের দামও ৫০ শতাংশ কমিয়েছে ভারত সরকার।

সর্বাধিক পঠিত