প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লকডাউনের পক্ষে বিএনপি-জামাত-হেফাজতের কথা প্রকাশ্য ষড়যন্ত্র: ওলামা লীগ

শিমুল মাহমুদ: [২] মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগসহ সরকারের পক্ষের ১৩টি সমমনা ইসলামি দলের আয়োজনে এক মানববন্ধনে বক্তারা এ মন্তব্য করেন।

[৩] মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বিএনপি জামাত এবং মুনাফেক কওমী মালানা গোষ্ঠী ও ধর্মব্যবসায়ী মালানাদের সব ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করতে অবিলম্বে আত্মঘাতি লকডাউন তুলে দিতে হবে। লকডাউন কোনো সমাধান না। লকডাউন দিয়ে দেশের অর্থনীতি ও জনগনের ক্ষতির কোনো মানে হয় না। লকডাউন দিয়ে কোনো সমাধানে পৌছানো যাবে না।

[৪] বিএনপি জামাত-হেফাজত চায় লকডাউনের নামে দেশের মানুষকে না খাইয়ে মারতে। দেশে ৭৪ এর মত দুর্ভিক্ষ তৈরি করতে। মসজিদে জামাত, তারাবীহ, ইফতারি বন্ধ করে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলতে। সর্বোপরি লকডাউনের মাধ্যমে দেশে মহাঅস্থিতিশীল পরিবেশ, অরাজকতা তথা বিশৃঙ্খলা তৈরি করে বর্তমান মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারের পতন ঘটাতে।

[৫] বক্তারা বলেন, লকডাউনের বিরুদ্ধে সারা দেশের মানুষ ক্ষেপে উঠেছে। কারণ লকডাউনে তারা না খেয়ে মরছে। বাংলাদেশের দোকান মালিক সমিতির নিজস্ব হিসাবে সারা দেশে গত বছরের লকডাউনে ৫৩ লাখ ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠানের দৈনিক ক্ষতি হয়েছে প্রায় এক হাজার ৭৪ কোটি টাকা। এদের পুজির পরিমাণ ৫০ হাজার টাকা থেকে এক লাখ টাকা। গত করোনায় লকডাউনে তারা সব পুজি নষ্ট করেছেন। এই ক্ষুদ্র ব্যবসা খাতের উদ্যোক্তারা কোনোও প্রণোদনা পাননি। এবারো পাবেনা। দেশের গোটা জনসাধারণ লকডাউনের বিরুদ্ধে।

[৬] তারা বলেন, প্রতিদিন লকডাউনে দেশের ক্ষতি হয় ৫ হাজার কোটি টাকা। রফতানি সংশ্লিষ্ট খাত সব ধ্বংস হয়ে যায়। কাজেই জনগন ও দেশের স্বার্থবিরোধী লকডাউন এখনি উঠিয়ে দিতে হবে।ইতোমধ্যে লকডাউন পালন করতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা বহিনীর উপর জনগনের আক্রমনের খবরও পত্রিকার শিরোনাম হয়েছে। ফরিদপুরে থানা ও সরকারি স্থাপনায় ‘উত্তেজিত জনতার আগুন’।

[৭] বক্তারা বলেন, লকডাউনে অতিষ্ট হয়ে এভাবে সাধারণ মুসলমানকে বিভ্রান্ত করে বিএনপি জামাত হেফাজত দেশের আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটিয়ে সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করার বিশেষ সুযোগ নিবে। কাজেই সরকারকে সতর্ক হয়ে লকডাউন প্রত্যাহার করতে হবে।

[৮] নেতারা বলেন, পবিত্র রমাদ্বান মাসে অনেক ধর্মপ্রাণ সাধারন মানুষ ও গরীব মুসলমান মসজিদে আয়োজিত ইফতারে শরীক হয়। এবার মসজিদে ইফতারী বন্ধ করলে তারা সারাদিন রোজা রাখার পরও ইফতারী পাবেনা। বক্তারা বলেন, সারাদেশে লাখ লাখ হাফেজ রয়েছে খতমে তারাবীহ পড়িয়ে তাদের সারা বছর চলে। পাশাপাশি সাধারন মুসলমান মসজিদে খতমে তারাবীহ পড়ার মাধ্যমে পবিত্র কুরআন শরীফ তিলাওয়াত শুনে থাকে। কিন্তু লকডাউনের নামে তা বন্ধ করলে সাধারণ মুসলমানের দ্বীনি অনুভূতিতে আঘাত হানবে। বর্তমান সরকারকে ইসলাম বিরোধী ও বিদ্ধেষী প্রচার করতে বিএনপি, হেফাজত, জামাত-শিবির সুযোগ নিবে।

[৯] বক্তারা বলেন, বিএনপি জামাতের সুরে সুর মিলিয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সাবেক দুর্নীতিবাজ ডিজির আমলে নিয়োগপ্রাপ্ত বর্তমান জামাতী মালানা, মুফতী, মুহাদ্দিস, মুনাফেক কওমী মালানা এবং ধর্মব্যবসায়ী মালানারা করোনাকে ছোঁয়াচে ও মহামারী বলে ফতোয়া দিয়েছে এবং সরকারকে লকডাউন ঘোষণা করতে বাধ্য করেছে। অথচ খোদ ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক প্রকাশিত বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ, তিরমিযী শরীফ, আবূ দাউদ শরীফ, ইবনে মাজাহ শরীফের বাংলা অনুবাদে উল্লেখ আছে “সংক্রমণ বা ছোঁয়াচে রোগ বলতে যে কোন কিছু নেই”।

[১০] তারা আরও বলেন, মসজিদে মাস্ক পড়ে যেতে হবে এ কথার অর্থ হলো মসজিদে গেলে করোনা হয়। মসজিদে গেলে মাস্ক পড়ে যেতে হবে একথা দ্বারা মুসল্লীদের মনে মসজিদ সম্পর্কে করোনা আতঙ্ক তৈরী করে দেয়া হয়। অথচ মসজিদ হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনার ঘর। যেখানে অবারিত রহমত নাযিল হয়। তাই মসজিদে গেলে উল্টো করোনা সেরে যায়

[১১] সারা বিশ্বে ঢাকা মসজিদের শহর হিসেবে সুবিখ্যাত। কাজেই মসজিদ সম্পর্কে মিথ্যা আতঙ্ক তৈরী করা যাবেনা। মসজিদে প্রবেশে মাস্ক বাধ্যতামূলক করা যাবেনা। ধর্ম মন্ত্রণালয়ে অধর্ম তথা অনৈসলামিক ফতোয়া অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।

[১২] মানববন্ধনে সমন্বয় করেন, বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের সভাপতি- আলহাজ্জ মাওলানা মুহম্মদ আখতার হুসাইন বুখারী। বক্তব্য রাখেন- সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্জ কাজী মাওলানা মুহম্মদ আবুল হাসান শেখ শরীয়তপুরী, সম্মিলিত ইসলামী গবেষণা পরিষদের সভাপতি- আলহাজ্জ হাফেজ মাওলানা মুহম্মদ আব্দুস সাত্তার, কার্যকরী সভাপতি- বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগ। আওয়ামী ওলামা লীগের সহসভাপতি, হাফেয মাওলানা মুহাম্মাদ মোস্তফা হোসেন চৌধুরী প্রমুখ।

সর্বাধিক পঠিত