প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলাসহ এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে পুণরায় শঙ্কা

শরীফ শাওন: [২] করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা কয়েক দফা পিছিয়ে ২৩ এপ্রিল নির্ধারণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে করোনা সংক্রমণ ব্যাপক হারে বেড়ে নতুন রেকর্ড গড়ায় ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

[৩] সংশ্লিষ্টদের দাবি, করোনার প্রথম ঢেউ নিয়ন্ত্রণে এসেছে ১১ মাস পর, ফেব্রুয়ারি মাসে। দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে কি পরিমাণ সময় লাগবে, বিষয়টি অনিশ্চিত।

[৪] এর আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনায় বলা হয়, এসএসসি ৬০ দিনের এবং এইচএসসি ৮০ দিনের কর্মপরিকল্পনায় শিক্ষার্থীদের পাঠদানের মাধ্যমে পরীক্ষার আয়োজন করা হবে। এছাড়াও মাধ্যমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায়ে অর্ধবর্ষ পরীক্ষা ১২ জুন শুরু হয়ে নির্বাচনি বা বার্ষিক পরীক্ষা ১১ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করতে হবে।

[৫] মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে ২৮ ডিসেম্বর এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হলেও অজ্ঞাত কারণে বর্তমানে তা ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়নি।

[৬] ঢাকা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ১৫ দিন সময় পেলেই আমরা পরীক্ষা নিতে পারবো। তবে ক্লাস নেওয়ার পর পরীক্ষার সিদ্ধান্তটি এখানো বহাল রয়েছে। ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলতে দেরি হলে পরীক্ষার সময় পেছাতে পারে।

[৭] অভিভাবকদের মতে, বিগত বছরের শিক্ষার্থীরা কিছুটা ক্লাস করতে পারলেও অটোপাসের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বছরজুড়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এবছর পরীক্ষার্থীরা কোন ক্লাস করার সুযোগ পায়নি।

[৮] নেহাল আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্বে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। বৈশ্বিক সমস্যায় এককভাবে কিছু বলা যাবে না। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা এবং পরীক্ষার আয়োজনে জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নেবে। এ ছাড়া বিকল্প নেই।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত