প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ৫০ হাজার টাকায় চেন্নাইয়ের নেট বোলার হতে গিয়ে প্রতারণার শিকার

স্পোর্টস ডেস্ক : [২] ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) মতো টুর্নামেন্টে খেলার স্বপ্ন দেখেন প্রত্যেকেই। স্কোয়াডে না থেকেই সুযোগ থাকে নেট বোলার হিসেবে দলের সঙ্গে থাকার। কিন্তু এই সুযোগটাকে কাজে লাগাতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হয়েছেন দিল্লির ক্রিকেটার আশিস পান্ডে।

[৩] ২১ বছর বয়সী আশিস ২০১৯ আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের নেট বোলার ছিলেন। ২০২০ মৌসুমে এই সুযোগ পাননি। কিন্তু চলতি মৌসুমে তাকে নেট বোলার বানানোর কথা বলে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন রাকেশ গোসওয়ামি নামের একজন।
এই ঘটনার পর মেরিন ড্রাইভ পুলিশ স্টেশনে একটি এফআইয়ার দায়ের কথা হয়েছে। সেখানকার এক পুলিশের বলেন, আমরা এই ঘটনা সম্পর্কে শুনেছি। ইতোমধ্যে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। আমরা বিষয়টি দেখছি, এমন ঘটনা আরও ঘটেছে কিনা।
অভিযোগে বোলা হয়েছে, গোসওয়ামি চেন্নাইয়ের নেট বোলার হওয়ার জন্য পান্ডেকে ফোন করেন এবং ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। এমনকি প্রতিদিন নেটে বোলিংয়ের জন্য পান্ডেকে ৩ হাজার করে টাকাও দেয়া হবে। এরপরই এ নিয়ে পরিবারের সঙ্গে কথা বলেন পান্ডে।

[৪] এক ঘন্টা পর গোসওয়ামিকে কল করে বিষয়টি নিশ্চিত করেন পান্ডে এবং পুরো অর্থ দিতেই প্রস্তুত। দিল্লির এই ক্রিকেটারকে বলা হয়, মুম্বাইয়ে পৌঁছানোর পরই আই-কার্ড এবং জার্সি দেয়া হবে। এরপর ৩ এপ্রিল এয়ার ইন্ডিয়ার ফ্লাইটে মুম্বাই যান পান্ডে।

[৫] সেখানে পৌঁছে গোসওয়ামির সঙ্গে যোগাযোগ করলে পান্ডেকে হোটেল নারিমান পয়েন্টে আসতে বলা হয়। এফআইআরে আরও বলা আছে, সেদিন সকাল ১১টায় হোটেলের গেটে ১০ হাজার টাকা প্রতারককে দেয়া হয়। জানানো হয়, বাকি অর্থ পরের দিন দেয়া হবে। ৪ এপ্রিল সকালে বাকি ৪০ হাজার টাকা গোসওয়ামিকে ট্রান্সফার করেন পান্ডে। এরপর ফোনে যোগাযোগ হলে, পান্ডেকে ২ ঘন্টার মধ্যে আই-কার্ড পেয়ে যাওয়ার বিষয়ে আশ্বাস দেন প্রতারক।

[৬] এর পর পরই মোবাইল বন্ধ করে দেন গোসওয়ামি। তার সঙ্গে আর যোগাযোগ করতে পারেননি পান্ডে। তখনই প্রতারণার বিষয়টি ধরতে পারেন দিল্লির এই ২১ বছর বয়সী ক্রিকেটার। পরবর্তীতে মেরিন ড্রাইভ থানায় এফআইআর দায়ের করেন তিনি। – ক্রিকফ্রেঞ্জি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত