প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

একাধিক বিয়ে করে জেল এড়াতে চাইলে যে আইন মানতে হবে

আর-রাজী, ফেসবুক থেকে , প্রথম কথা, আকাশ বাতাস সাক্ষী রেখে একাধিক বিবাহ করা যায় না। বিবাহর কথা গোপন রাখতে হেকমত খাটানোর কোনো সুযোগ আইন রাখে নাই।

আমাদের মুসলিম পারিবারিক আইন-১৯৬১তে পুরুষের একাধিক বিয়ে করা নিয়ে যা বলা আছে:

“বহু বিবাহ :

১. সালিশী পরিষদের লিখিত পূর্বানুমতি ছাড়া কোন ব্যক্তি একটি বিবাহ বলবৎ থাকলে আরেকটি বিবাহ করতে পারবে না এবং পূর্ব অনুমতি গ্রহণ না করে এই জাতীয় কোন বিবাহ হলে তা মুসলিম বিবাহ ও তালাক (রেজিস্ট্রেশন) আইন, ১৯৭৪ (১৯৭৪ সনের ৫২নং আইন) অনুসারে রেজিস্ট্রি হবে না।

২.
১. উপ-ধারায় বর্ণিত অনুমতির জন্য নির্দিষ্ট ফিসসহ নির্ধারিত পদ্ধতিতে সংশ্লিষ্ট এলাকার চেয়ারম্যানের কাছে আবেদন করতে হবে এবং আবেদনপত্রে প্রস্তাবিত বিবাহের কারণ এবং বর্তমান স্ত্রী বা স্ত্রীদের সম্মতি নেওয়া হয়েছে কিনা, তা উল্লেখ করতে হবে।
৩.
উপরোক্ত ২. উপ-ধারা মোতাবেক আবেদনপত্র পাওয়ার পর সংশ্লিষ্ট এলাকার চেয়ারম্যান আবেদনকারী এবং বর্তমান স্ত্রী বা স্ত্রীদের প্রত্যেককে একজন করে প্রতিনিধি মনোনয়ন করতে বলবেন এবং এইরূপে গঠিত সালিশী পরিষদ যদি মনে করেন যে, প্রস্তাবিত প্রয়োজন ন্যায়সঙ্গত, তা হলে কোন শর্ত থাকলে তার সাপেক্ষে, প্রার্থিত বিবাহের অনুমতি মঞ্জুর করতে পারেন।
৪.
আবেদনটি সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় সালিশী পরিষদ সিদ্ধান্তের কারণসমূহ লিপিবদ্ধ করবেন এবং যে কোন পক্ষ, নির্দিষ্ট ফিস জমা দিয়ে নির্ধারিত পদ্ধতিতে সংশ্লিষ্ট মুন্সেফের কাছে রিভিশনের (Revision) জন্য আবেদন দাখিল করতে পারবেন এবং সালিসী পরিষদের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে এবং কোন আদালতে এর বৈধতা সম্পর্কে কোন প্রশ্ন উত্থাপন করা যাবে না।
৫. সালিশী পরিষদের অনুমতি ছাড়া কোন ব্যক্তি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলে তাকে-

(ক) অবিলম্বে তার বর্তমান স্ত্রী বা স্ত্রীদের “তাৎক্ষণিক” অথবা “বিলম্বিত” দেনমোহরের (Prompt or deferred dower) যাবতীয় টাকা পরিশোধ করতে হবে এবং উক্ত টাকা পরিশোধ করা না হলে তা বকেয়া ভূমি রাজস্বের ন্যায় আদায়যোগ্য হবে।

(খ) অভিযোগক্রমে দোষী সাব্যস্ত হলে সে এক বৎসর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড অথবা দশ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবে।”

দ্বিতীয় জরুরি কথা হচ্ছে, বিয়ে নিবন্ধিত না হলে বরকে শাস্তি পেতেই হবে।
মুসলিম বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন আইন ১৯৭৪-এ নিকাহ নিবন্ধনের যে আইন আছে তাতে বলা হয়েছে, যদি কাজি সাহেবের উপস্থিতিতে বিয়ে হয় তাহলে কাজি সাহেবকেই তা অনতিবিলম্বে রেজেস্ট্রি করতে হবে। আর যদি নিবন্ধক (কাজী) উপস্থিত না থাকেন তাহলে ৩০ দিনের মধ্যে বিয়ে পাত্র বা বরকে রেজিস্ট্রি করতে হবে।

যদি বর বিয়ের ৩০ দিনের মধ্যে তার বিয়ে নিবন্ধিত না করেন, তাহলে আইন ভঙ্গের অপরাধে বরকে দুই বছর পর্যন্ত জেল বা তিন হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা বা একই সাথে দুটি দণ্ডই দেয়া যেতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত