প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ধারের টাকা চাইতে গেলে খুন হলো রাউজানের এক গৃহবধূ স্বামীসহ আটক ২

শাহাদাত হোসেন:[২] পাওনা টাকা চাওয়ায় পাহাড়ে নিয়ে চট্টগ্রামের রাউজানের শাহানা আক্তার (২৮) নামে এক গৃহবধূকে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় কাউখালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুইজনকে আটক করেন।

[৩] আটককৃত হলেন- গৃহবধূর স্বামী রাউজান সদর ইউনিয়নের নাতোয়ান বাগিছা এলাকার শমসের নগরের গুচ্ছ গ্রামের সাইদুল আলম ও পূর্ব রাউজান জয়নগর বড়ুয়া পাড়ার সুজন বড়ুয়া। রাঙামাটি জেলার কাউখালি উপজেলার মনাইর টেকনামক এলাকার পাহাড়ে শাহানারকে মেরে মুমুর্ষ অবস্থায় ফেলে পালিয়ে য়ায় দুর্বৃত্তরা।

[৪] খবর পেয়ে কাউখালি থানার পুলিশ ৫ এপ্রিল সোমবার রাতে ওই পাহাড় থেকে মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যু হয় শাহানা। জানা যায়, নিহত শাহানা রাউজান পৌর ৭নম্বর ওয়ার্ডের ছত্রপাড়া গ্রামের মান্নান উল্লাহ সিকদার বাড়ির হাছি মিয়া সিকদারের মেয়ে ও রাউজান সদর ইউনিয়নের নাতোয়ান বাগিছা এলাকার শমসের নগরের গুচ্ছ গ্রামের মো. সাইদুল আলমের স্ত্রী।

[৫] জানা গেছে, পাহাড়ে শাহানাকে মুমুর্ষ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন দুই উপজাতি। এসময় তারা শাহানার সাথে কথা বলে জানতে পারেন- জন বড়ুয়া নামের এক যুবক তাকে পাহাড়ে এনে মারধর করে মুমুর্ষ অবস্থায় ফেলে যায়। এরপর বাপের বাড়ি ও শ্বশুর বাড়ির ঠিকানা উল্লেখ করে বলেন শাহানা। পুলিশ ও তার স্বজনদের খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয়ে মুমুর্ষ অবস্থায় শাহানাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান।

[৬] কাউখালি থানার পুলিশ পরিদর্শক মহিবুল ইসলাম বলেন, নিহত শাহানা আক্তারের সঙ্গে তার শ্বশুর বাড়ির প্রতিবেশী সুজন বড়ুয়ার স্ত্রীর সাথে বোন ডাকাডাকি সম্পর্ক তৈরি হয়। সম্পর্কের সূত্র ধরে শাহানারের কাছ থেকে সুজন বড়ুয়া ৩০ হাজার টাকা ধার নেয়। ধারের টাকা আদায় করতে গেলে তাদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়।

[৭] এই লেনদেনের জের ধরেই সুজন বড়ুয়া শাহানাকে কৌশলে হত্যার উদ্দেশ্যে পাহাড়ে নিয়ে যায় বলে ধারণা করা হচ্ছে। নিহতের শরীরের বিভিন্নস্থানে আঘাতের চিহ্নও রয়েছে। কাউখালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদ উল্লাহ বলে, নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হচ্ছে। মঙ্গলবার নিহত শাহানার পিতা বাদি হয়ে সাইদুল আলম ও সুজন বড়ুয়ার নাম উল্লেখ করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

[৮] পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার স্বামী মো.সাইদুল আলম ও সুজন বড়ুয়াকে আটক করা হয়। উল্লেখ্য, গত ১৩ বছর আগে রাউজান পৌরসভার ৭নম্বর ওয়ার্ডের ছত্রপাড়া এলাকার হাছি মিয়া সিকদারের মেয়ে নিহত শাহানা আকতারের সঙ্গে রাউজান উপজেলা সদর ইউনিয়নের শমসের নগরের গুচ্ছ গ্রামের মো. সুলতান আহমেদের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তাদের দুই ছেলে সন্তান রয়েছে।সম্পাদনা:অনন্যা আফরিন

 

 

সর্বাধিক পঠিত