প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আবারও ভয়ঙ্কর রূপে করোনা, লকডাউনের পথে দেশ!

সময় নিউজ : মহামারি আকার ধারণ করা করোনায় দেশে হু হু করে বাড়ছে মৃত্যু ও শনাক্ত। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরও ৫৯ জন। যা এ যাবতকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৯ হাজার ১০৫ জনে। এছাড়া দেশের ইতিহাসে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৪৬৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর এত বেশিসংখ্যক রোগী আর শনাক্ত হয়নি। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ১৭ হাজার ৭৬৪ জনে।

বুধবার (৩১ মার্চ) করোনায় মারা যায় আরও ৫২ জন। এছাড়া ৫ হাজার ৩৫৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এছাড়া আগের দিন মঙ্গলবারও (৩০ মার্চ) করোনায় আক্রান্ত ও শনাক্ত ভয়ঙ্কর। এদিন আরও ৪৫ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী মারা যায় এবং শনাক্ত হয় ৫ হাজার ৪২ জন। গত কয়েকদিনের ধারাবাহিক শনাক্ত ও মৃত্যু পর্যালোচনা করলে বোঝা যায় দেশের করোনা আবারও ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতে যাচ্ছে।

এমন এক অবস্থায় ঢাকার হাসপাতালগুলোতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে করোনা আক্রান্তদের সংখ্যা। তিল ধারণের ঠাঁই নেই। ফাঁকা নেই কোনো আইসিইউ। প্রবল সংকটের মধ্যে সাধারণ শয্যা পেতেও হিমশিম খাচ্ছেন রোগীরা। পর্যাপ্ত বেড না থাকায় বহু রোগীকে ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে নিয়মিত।

এছাড়াও দেখা গেছে, রাজধানীর কোভিড হাসপাতালগুলোতে করোনা টেস্ট করাতে আসা রোগীদের দীর্ঘ লাইন। নগরীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে দেখা যায়, সিটের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ রোগী বর্তমানে ভর্তি রয়েছে। এছাড়া প্রতিদিনই সক্ষমতার চেয়ে তাদের অনেক বেশি পরীক্ষা করাতে হচ্ছে। কুর্মিটোলা হাসপাতালে পরীক্ষা করাতে আসা মানুষের মধ্যে প্রায় ৪০ শতাংশই করোনা পজিটিভ পাওয়া যাচ্ছে বলে জানান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এমনকি গত বছর যখন করোনা পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় ছিল, এখন তার চেয়েও খারাপের দিকে যাচ্ছে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন তারা।

কুর্মিটোলা হাসাপাতালে এক কর্মচারী জানান, গত বছরের চেয়েও এবার রোগীর চাপ বেশি। রোগীদের জটিলতা ভিন্ন। ১০০ জনের মধ্যে ৪০ জনই পজিটিভ হচ্ছেন।

ভয়াবহ এই পরিস্থিতিতে ইতোমধ্যে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে দুই সপ্তাহের জন্য ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করা করেছে সরকার। সকল ধরনের জনসমাগম (সামাজিক/রাজনৈতিক/ধর্মীয়/অন্যান্য) সীমিত, উচ্চ সংক্রমণযুক্ত এলাকায় সকল ধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ, বিয়ে/জন্মদিনসহ যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠান উপলক্ষে জনসমাগম নিরুৎসাহিত করার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

এছাড়াও মসজিদসহ সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন নিশ্চিত করা, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধারণক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক যাত্রী বহন না করা, যান চলাচল সীমিত করা, বিদেশ হতে আগত যাত্রীদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখা, সকল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ৫০ ভাগ জনবল দ্বারা পরিচালনা করা সহ ১৮ নির্দেশনা জারি করে সরকার।

এদিকে করোনা প্রতিনিয়ত বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ রেলওয়ে বুধবার (৩১ মার্চ) যাত্রীবাহী ট্রেনের টিকিট ইস্যুর ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম প্রবর্তন করেছে। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, আগামী ১১ এপ্রিলের পর আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট ইস্যু পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, বাংলাদেশ রেলওয়ের আন্তঃনগর ট্রেনগুলোর মোট আসনসংখ্যার ৫০ শতাংশ টিকিট একই সঙ্গে অনলাইন, মোবাইল অ্যাপ ও কাউন্টারে যুগপৎভাবে সকাল ৮টা থেকে অগ্রিম ব্যবস্থাপনায় ইস্যু করতে হবে। করোনা সংক্রমণ রোধে এখন থেকে সব ট্রেনে যাত্রী পাশাপাশি নয়, এক আসন ফাঁকা রেখে বসারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে।

এদিকে বৃহস্পতিবার (০১ এপ্রিল) দেশে করোনা পরিস্থিতি অবনতির কারণে ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ ও লক্ষীপুর-২ আসনসহ সব নির্বাচন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এছাড়া যত শিগগিরই সম্ভব দেশে চলমান বইমেলা, সামাজিক অনুষ্ঠান, বিনোদনকেন্দ্র ও অন্যান্য মেলা বন্ধের সুপারিশ করেছে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। একইসঙ্গে হাসপাতালগুলোতে হাসপাতাল শয্যা ও আইসিইউ বাড়ানোর পরামর্শও দিয়েছেন তারা। সেই সঙ্গে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকেও নির্দেশনা নেয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এরআগে গত (২৯ মার্চ) করোনার সংক্রমণ রোধে ‘লকডাউনের‘ ইঙ্গিত দিয়ে দেশের একটি জাতীয় গণমাধ্যমকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘মহামারির নতুন ধাক্কা সামাল দিতে সরকার চলাফেরা ও লোক সমাগমের ক্ষেত্রে নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করতে যাচ্ছে। দেশের কিছু এলাকার জন্য এ ধরনের ঘোষণা ‘আসতে পারে’।’

তিনি বলেন, ‘হয়ত বিভিন্ন টাইপের ‘লকডাউনের’ ঘোষণা আসবে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি-এসব এলাকায় যাওয়া-আসা বন্ধ করা, বিয়ে শাদী অনুষ্ঠান, ওয়াজ মাহফিল, পিকনিক এগুলোও বন্ধ করা… যেখানে জনসমাগম হয় সেসব অনুষ্ঠানে বিধিনিষেধ আসতে পারে।’

এদিকে করোনার সংক্রমণ রোধে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংক্রমণ রোধে তিনি আগের মতো সবকিছু নিয়ন্ত্রণের আভাস দেন। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) সংসদে তিনি বলেন, টিকা নেয়ার পর মানুষের মধ্যে উদাসীনতা বেড়ে গেছে। সবাইকে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে, সরকারকে সহায়তার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় মহামারি পরিস্থিতির বিষয়টি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, করোনার প্রথম ঢেউ নিয়ন্ত্রণে নেয়া ব্যবস্থাগুলো আবারও নেয়া হতে পারে। টিকা নেয়ার পর অবহেলা ও উদাসীনতায় মহামারির সংক্রমণ বেড়েছে বলেও মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

হঠাৎ করে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু বৃদ্ধি পাওয়ার বিভিন্ন কারণ তুলে ধরে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর আগে গত কয়েক মাসের বেশি সময় ধরে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা, আক্রান্ত রোগী শনাক্ত ও মৃত্যুর হার একটু একটু করে কমে আসছিল। কিন্তু সামাজিক দূরত্ব না মানা, মাস্ক পরিধান না করা, পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে উপচেপড়া ভিড়, স্বাস্থ্যবিধি না মানা, জীবাণুনাশক ব্যবহারের উদাসীনতায় আবারও ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।

সংক্রমণের পরিস্থিতির যদি আরও অবনতি হয়, তাহলে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে, এই পরিকল্পনাও আগে থেকে করে রাখা জরুরি। সংক্রমণ যদি দ্রুত বাড়ে, সেক্ষেত্রে আরেক দফা লকডাউনে যাবে কিনা, এই চিন্তাও আগেভাগে করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

এছাড়া করোনার বর্তমান অবস্থা আগামী কয়েকদিন এভাবে চলতে থাকলে এ মাসেই সরকার লকডাউনে যেতে পারে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশে লকডাউন করা দরকার কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সময়নিউজকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. বেনজীর আহমেদ বলেন, লকডাউনই সব সমস্যার সমাধান নয়। নিজেদের ভিতরে সচেতনতা তৈরি করলেই লকডাউনের কাজ হবে। লকডাউন করলেন, কিন্তু মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানল না তাতে কোনো লাভ হবে না।

এক্ষেত্রে সরকারকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, করোনা শনাক্তের পরীক্ষা বৃদ্ধি করতে হবে। যারা করোনায় আক্রান্ত তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে। করোনায় বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করতে হবে। আক্রান্ত আইসোলেশন নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া যারা সন্দেহজনক তাদেরকে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। এক্ষেত্রে পরীক্ষার কোনো বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, দেশ লকডাউনের বিষয়টি সরকারের। এক্ষেত্রে আমার পরামর্শ হলো আংশিক লকডাউন করা। বিশেষ করে চিহ্নিত এলাকাগুলো অবশ্যই লকডাউন করা উচিত। যাতে এক এলাকার মানুষ আরেক এলাকায় যেতে না পারে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা, জনসমাগম এড়িয়ে চলা, অফিস-আদালতে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার ওপর জোর দেন এই বিশেষজ্ঞ।

সরকারের ১৮ নির্দেশনা, দেশের সব নির্বাচন স্থগিত, ট্রেনের টিকিট বিক্রিতে স্থগিতাদেশ, করোনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক বক্তব্য, চলমান বইমেলা ও দেশের বিনোদনকেন্দ্র বন্ধের সুপারিশ, গণপরিবহনে যাত্রীর চলাচল নিয়ন্ত্রণ, সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখা, সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ৫০ ভাগ জনবল দ্বারা পরিচালনা করা কি আবারও লকডাউনের ইঙ্গিত? তাহলে কি আবারও লকডাউন হতে যাচ্ছে দেশ? এ প্রশ্নের জবাব পেতে অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছুদিন।

সর্বাধিক পঠিত