প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সবার সামাজিক নিরাপত্তার জন্যই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

নয়া দিগন্ত: তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, সবার সামাজিক নিরাপত্তা সুরক্ষার জন্যই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি করা হয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ উঠেছে যে, আইনটির অপপ্রয়োগ হচ্ছে। এ বিষয়ে সরকার সচেতন রয়েছে। আইনটির যেন অপব্যবহার রোধ করা যায় সে বিষয়ে আমরা সবার সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।

মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন উপলক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির উদ্যোগে মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল ‘মহান স্বাধীনতার ৫০ বছর : গণমাধ্যমের অর্জন ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

ডিআরইউ’র সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ডিআরইউর সভাপতি মুরসালিন নোমানীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন- জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল। অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন-ডিআরইউ’র সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও মার্কিন প্রবাসী সাংবাদিক মনোয়ারুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মাইনুল হাসান সোহেল ও সদস্যসচিব মাইদুর রহমান রুবেল, ডিআরইউ’র সহসভাপতি ওসমান গনি বাবুল, যুগ্ম সম্পাদক আরাফাত দাড়িয়া, অর্থ সম্পাদক শাহ আলম নূর, দফতর সম্পাদক জাফর ইকবাল, ক্রীড়া সম্পাদক মাকসুদা লিসা, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মিজান চৌধুরী, আপ্যায়ন সম্পাদক মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন, কল্যাণ সম্পাদক খালিদ সাইফুল্লাহ, কার্যনির্বাহী সদস্য এম এম জসিম, রুমানা জামান, রফিক রাফি, নার্গিস জুঁইসহ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

গত ৫০ বছরে দেশের সার্বিক অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছি। গণমাধ্যমের ব্যাপক প্রসার ঘটেছে। বিশেষ করে গত ১২ বছরে যেখানে দৈনিক পত্রিকা ছিল ৪৫০টি, সেটি এখন ১২৫০ এ পৌঁছেছে। বেসরকারি টেলিভিশন ছিল ১০টি। সেটি এখন ৩৪টি। আরো ১১টি সম্প্রচারের অপেক্ষায় রয়েছে। অনলাইন রয়েছে হাজার হাজার। এর মধ্যে পাঁচ হাজার নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছে।

দেশে গণমাধ্যমের অবাধ স্বাধীনতা রয়েছে মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যম যে পরিমাণ স্বাধীনতা ভোগ করে সেটি অনেক উন্নত দেশেও পারে না। অসত্য সংবাদ পরিবেশনের কারণে যুক্তরাষ্ট্রে দেড় শত বছরের পুরনো সংবাদপত্রকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। অনেক দেশেই অসত্য খবর প্রচারের অভিযোগে জরিমানা করা হচ্ছে। অনেকেই পদত্যাগ করছেন। সেখানে বাংলাদেশে অনেক মিথ্যা অসত্য ও ভিত্তিহীন কল্পনাপ্রসূত খবর প্রকাশিত হচ্ছে। প্রতিবাদ পাঠানো হলে সেটিও যথাস্থানে ছাপানো হয় না। মন্ত্রী বলেন, আমরা অবশ্যই সমালোচনা চাই। তবে সেটি হতে হবে গঠনমূলক। জনগণকে বিভ্রান্ত করে এমন সংবাদ আমাদের পরিহার করা উচিত। আলোচনা শেষে সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত ‘সিটি ব্যাংক-ডিআরইউ ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট’ বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত