প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যশোরে স্কুল ছাত্র নিরব অপহরণ মামলার দুই আসামি আটক

জাহিদুল কবির: যশোরে বাদশা ফয়সাল ইসলামী ইন্সটিটিউশনের দশম শ্রেণির ছাত্র মীর মুরসালিন হোসেন নিবরকে অপহরণ ও চাঁদাদাবির মামলার এজাহারভুক্ত দুই আসামিকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার (২৯ মার্চ) রাত ৪ টার দিকে শহরের বেজপাড়া আনসার ক্যাম্প এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। ওই দিন দুপুরে আটক আসামিদের আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

আটককৃতরা হচ্ছে, বেজপাড়া আনসার ক্যাম্পের পেছন এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে মানিক ও আব্দুল্লাহর ছেলে আহাদ ওরফে অভি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালি থানা পুলিশের এসআই আবুল হাসান জানান, সোমবার রাত ৪ টার দিকে চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির সহায়তায় স্কুলছাত্র নিরব অপহরণ ও চাঁদাদাবি মামলার আসামিদের আটকের জন্য বেজপাড়া আনসার ক্যাম্পের পেছন এলাকায় অভিযান চালান। এ সময় এজাহারভুক্ত আসামি মানিক ও অভিকে তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়। কিন্তু অপর আসামি হাসানের বাড়িতে অভিযান চালানো হলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কৌশলে সে পালিয়ে যায়। তবে তাকে আটকের জন্য জোর প্রচেষ্টা চলছে। তিনি আরো জানান, আটকের পর দুপুরে আসামি মানিক ও অভিকে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. সাইফুদ্দীন হোসাইন আসামিদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ মার্চ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে যশোর শহরস্থ বাদশা ফয়সাল ইসলামী ইন্সটিটিউশনের সামনে থেকে দুর্বৃত্তরা ছুরির ভয় দেখিয়ে দশম শ্রেণির ছাত্র মীর মুরসালিন হোসেন নিরবকে অপহরণ করে। পথে তারা তার কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন সেট ও নগদ ৫৪০ টাকা কেড়ে নেয়। এরপর তারা তাকে বেজপাড়া আনসার ক্যাম্পের পেছনের একটি পরিত্যাক্ত ঘরে আটকে রেখে নির্মম নির্যাতন চালায় এবং মোবাইল ফোনে তার মায়ের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। এক পর্যায়ে চাঁদা না পেয়ে তারা তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে কোতয়ালি থানায় এজাহার দাখিল করা হলে গত ২৮ মার্চ সেটি নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত