প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] হু’র তদন্ত দলের পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদনে পরিষ্কার নয় করোনা ভাইরাসের উৎস

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তদন্ত দল প্রতিবেদনে বলেছে, ২০১৯ এর ডিসেম্বর থেকেই উহানের বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছিলো সার্স-কোভ-২। তবে তা কিভাবে বাজারে এলো সেই রহস্যের পূর্ণ সমাধান হয়নি। ১৫ মাস পরেও সুনির্দিষ্টভাবে জানা গেলোনা করোনাভাইরাসের আদি উৎস। সায়েন্স ম্যাগ

[৩] উহানের ইন্সটিটিউট অব ভাইরোলজিতে আগে থেকেই করোনাভাইরাস নিয়ে গবেষণা হচ্ছিলো এবং সেখান থেকেই ভুলবশত ভাইরাসটি লিক করে, এই গুঞ্জন অনেকেই বিশ্বাস করেন। তবে হু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভাইরাসটি ল্যাব থেকে বের হয়েছে এই সম্ভাবনা ‘প্রায়’ নেই। প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়া মাত্রাই এই প্রায় শব্দটি নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে। কারণ হু বিশেষজ্ঞরা ল্যাবটিতে স্বাধীনভাবে অনুসন্ধান করতে পারেননি। সেখানে তাদের মাত্র কয়েক ঘণ্টাই অবস্থান করতে দেওয়া হয়।

[৪] জর্জটাউন ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ও হু এর বিশেষজ্ঞ দলের সদস্য অ্যানগেলা রাসমুসেন বলেন, ‘আমরা এখনও জানি না, এই ভাইরাস কোত্থেকে এলো। তবে কিভাবে তদন্ত করতে হবে, সে ব্যাপারে এখন আমাদের স্পষ্ট পরিকল্পনা আছে।’

[৫] এই প্রতিবেদনে ভারাসের উৎস নিয়ে ৪টি সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে। প্রথমটি হলো, খুব সম্ভবত বাদুরের মতো কোনও ভাইরাস রিজার্ভার থেকে অন্য প্রাণীতে এই ভাইরাস সংক্রমিত হয়। সেখান থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়ে। এটিকে খুব বেশি জোড়ালো সম্ভাবনা বলছে হু’র দল।

[৬] বাদুরের মতো রিজার্ভার প্রাণী থেকে সরাসরি মানুষে সংক্রমণকে ২য় ও জোড়ালো সম্ভাবনা হিসেবে বিচার করছে হু।

[৭] ৩য় ও সম্ভব এমন একটি সম্ভাবনা হলো আক্রান্ত প্রাণীর হিমায়িত মাংস থেকে ছড়িয়ে পড়া।

[৯] ৪র্থ টি ল্যাব লিকেজ। তবে এটিকে খুব বেশি কঠিন এবং প্রায় অসম্ভব বলছেন হু’র ১৭ বিশেষজ্ঞ।

[১০] এই প্রতিবেদনকে অনুমোদন করেছে চীন এবং সেদেশের ১৭ বিশেষজ্ঞ।

সর্বাধিক পঠিত