প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মির্জাগঞ্জে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভাতা নেওয়ার অভিযোগ

সোহাগ হাসান:  ভাতা দেওয়া নয়, নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে সেই আলোচিত ইউপি চেয়ারম্যান মনির তালুকদারের বিরুদ্ধে। উপজেলার মাধবখালী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সরকারি বিভিন্ন ভাতা ও সেবা দেওয়া নামে সাধরন মানুষের কাছ থেকে কাড়িয়ে নিচ্ছে ভাতা।ভাতা ছাড়া তার কাছে মিলেনা কোন সরকারি সেবা।তার এই প্রচলিত ভাতা রীতিতে অতিষ্ঠ হয়ে গত ১৮ই মার্চ এলাকার সাধারণ মানুষ পৃথকভাবে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগে জানযায়, উপজর কিসমত ঝাটিবুনিয়া গ্রামের মৃত্যু কদম আলীর ছেলে সামসের আলী হাওলাদার ও একই গ্রামের মোঃ আলেপ মৃধার ছেলের কাছ থেকে ভাতার নাম দেওয়ার সময় চেয়ারম্যানকে ২ হাজার টাকা দেয়।

পরবর্তীতে নাম পাশ হওয়ার পরে ব্যাংক থেকে টাকা উওোলনের সময় চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত সচিব ও ইউপি সদস্য নিলুফার মাধ্যমে ২ হাজার ৫ শত টাকা কাড়িয়ে নেয়। নতুন শ্রীনগরের আঃ বারেক হাওলাদারের স্ত্রী মোসাঃ জাহানারা বেগমের কাছ থেকে টিউবওয়েল পাওয়ার জন্য ৭.৮.৯.ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যের স্বামীর মাধ্যমে ৩৫ হাজার টাকা নিলে ও কাজ অসমাপ্ত করে ফেলে রাখেন। টাকার অভাবে কাজ করতে পারেনি ভুক্তভোগী। ভাজিতা ৩য় খন্ডের মৃত্যু আঃ রাজ্জাক হাওলাদার এর ছেলে মোঃ ইউসুফ হাওলাদারের কাছ থেকে ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল গোলাম কবির কুদ্দুসের মাধ্যমে টিউবওয়েল পাওয়ার জন্য চেয়ারম্যানকে ৩০ হাজার টাকা প্রধান করলে ও টিউবওয়েলের প্লাট ফরম না করে রাখায় ভুক্তভোগীর নিজের টাকা কাজ করতে হয়েছে। ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বললে তারা জানান, সরকারি সেবা পেতেও চেয়ারম্যান কে টাকা দিতে হয়।আমরা এর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানাই।

অভিযুক্ত মাধবখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুল ইসলাম তালুকদারের ফোনে (০১৭২১৮০৭২৩৫) একাধিকবার কল করলেও সে ফোন রিসিভ করেনি।

এ ব্যাপারে পটুয়াখালী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জানান, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত