প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজশাহী নগরীতে ওসিকে লাঞ্ছিত করলো সুদ ব্যবসায়ীরা  

মঈন উদ্দীন: [২] রাজশাহী নগরীতে গন্ডগোল করতে নিষেধ করায় চন্দ্রিমা থানার ওসিকে লাঞ্ছিত করেছে স্থানীয় সুদ ব্যবসায়ীরা। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে নগরীর চন্দ্রিমা থানাধিন হাজরা পুকুর ডাবতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

[৩] প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, নগরীর হাজরা পুকুর ডাবতলা এলাকায় সুদের টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে শরীফের সাথে একই এলাকার মাসুমের বিবাদ বাধে। এ সময় ওই পথ দিয়ে চন্দ্রিমা থানার ওসি তার গাড়িতে করে থানায় যাচ্ছিলেন। সেখানে বিশৃঙ্খলা দেখে গাড়ি থামিয়ে নামেন তিনি। এ সময় তাদের ঝগড়া বিবাদ না করার জন্য নিষেধ করেন। এবং তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলার বিঘ্ন ঘটলে উভয় পক্ষকে আটক করা হবে।

[৪] এসময় সুদ ব্যবসায়ী শরিফ ওসিকে বলেন, এটা আমাদের ব্যক্তিগত ব্যপার। আপনি নিজের কাজে যান। এছাড়াও ওসির উপস্থিতিতে সুদ ব্যবসায়ী শরিফ মাসুমকে অকাথ্য ভাষায় গালিগালাজ করাসহ মারমুখি আচারন করতে থাকে। সেখানে দুই পক্ষের শতাধিক মানুষও জড়ো হয়। ওসি বুঝতে পারেন গন্ডগোলের সৃষ্টি হতে যাচ্ছে। এমন আশংকায় তিনি মাসুম এবং শরিফকে গাড়িতে তোলার নির্দেশ দেন কন্সটেবলদের। কিন্তু শরিফ গাড়িতে না উঠে ওসির সাথে তর্কে জড়ান।

[৫] এ সময় পুলিশ সুদ ব্যবসায়ী শরিফকে গাড়িতে তোলার চেষ্টা করে পুলিশ। তবে শরিফ ও তার বাবা আমির ওসি ও সঙ্গীয় ফোর্সকে মারমুখি আচারন করাসহ ধাক্কা দেয় এবং লাঞ্ছিত করে। এছাড়াও মাছুয়া সর্দার আমির ও তার ছেলে শরিফের লোকজন পুলিশের কাছ থেকে শরিফকে ছিনিয়ে নেয়। শরিফ হাজরা পুকুর ডাবতলা এলাকার সুদ ব্যবসায়ী লাইলীর জামাই ও মাছুয়া সর্দার আমিরেরর ছেলে। সে নিজেও একজন সুদ ব্যবসায়ী বলেও জানায় স্থানীয়রা।

[৬] জানতে চাইলে চন্দ্রিমা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সিরাজুম মনির বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং সংঘর্ষ এড়াতে শরিফ ও মাসুমকে গাড়িতে তোলার জন্য কন্সটেবলদের নির্দেশ দিলে তারা আমাদের সাথে মারমুখি আচারণ করে। এক পর্যায়ে তাদের লোকজন মিলে আমাকে এবং আমার কন্সটেবলদের লাঞ্ছিত করে গাড়ি থেকে শরিফকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। ওসি আরো বলেন, এ ব্যাপারে উর্দ্ধতম কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সম্পাদনা: সাদেক আলী

 

সর্বাধিক পঠিত