প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বৈচিত্র্যময় শিশুর  শৈশব জীবন কাটছে ইটভাটায়

তপু সরকার হারুন: ২১ মার্চ রবিবার  শেরপুরের একটি ইটভাটায় দেখা যায়, অভিভাবকহীন একটি শিশু বয়স ৩/৪ বছর হবে । শেরপুরের এমনই একটি  ইটভাটার চিত্র আপনাদের কাছে তুলে দরছি ।

২১ মার্চ রবিবার  শেরপুরের  আলামিন জিকজ্যাক ব্রিকস্ এ  অভিভাবকহীন-সন্তানের মত বসে এ-শিশুটি ।

সরেজমিনে দেখা যায়, মা কাজ করছেন ইটভাটায়। আর  ইটভাটার ভেতরের বাহির পাশে সন্তানকে রেখে কাজ করছেন  মা।

সেখানে কথা হয় অভিভাবক সুলকানা বেগমের সাথে তিনি বলেন, আমার বাড়ি কিশোরগঞ্জে। এখানে গত ৬ মাস ধরে কাজ করছি। যেহেতু এখানে অস্থায়ী, তাই কারও কাছে সন্তানকে রেখে আসার মতো জায়গা নেই। বাধ্য হয়েই এখানে পাশে বসিয়ে রেখে কাজ করতে হয়।

অভিভাবক রাসেল মিয়া বলেন, খুব কষ্টের সংসার। তাই এখানে আমি, আমার স্ত্রী ও সন্তান একসঙ্গে কাজ করি। এতে করে কোনো মতে সংসারটা চলে যায়। একার পক্ষে সংসার চালানো সম্ভব হয় না ।

প্রতিটি অভিভাবক নিজ সন্তানকে সুশিক্ষিত ও সুখী দেখতে হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করেন।অথচ বায়ূ দূষণের বড় একটি কারণ হচ্ছে এই ইটের ভাটা। সুযোগ না থাকায় বাধ্য হয়ে এই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে কাটছে শিশুদের শৈশব। দেশে শিশুশ্রম নিষিদ্ধ থাকলেও বাঁচার তাগিদে তাদের কিছু যেন করার নেই।

মানুষের দ্রুততম বিকাশ হয় শৈশবের শুরুতে। জন্মের পর থেকে আট বছর বয়স পর্যন্ত থাকে বিকাশের এই পর্ব।ছয় মাসের মধ্যেই মানুষের মস্তিষ্কের অর্ধেক গঠিত হয়ে যায় এবং আট বছরের মধ্যে তৈরি হয় ৯০ শতাংশ। শিশুর বুদ্ধিবৃত্তি, আবেগ, সামাজিক যোগাযোগ ও শারীরিক সম্ভাবনা বিকাশের জন্য এই পর্যায় ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।

দুই বছর বয়স পর্যন্ত শিশু মনোযোগ দিয়ে শোনে, কথায় সাড়া দেয়, শব্দের অনুকরণ করে, প্রথম অর্থবোধক শব্দ বলে, বড়দের কাজ-কর্ম অনুকরণ করে, বন্ধুত্ব গড়ে তোলে, সমস্যার সমাধান করে ও খেলাধুলা শুরু করে।

তিন থেকে পাঁচ বছরে শিশুরা নতুন নতুন বিষয় শেখা উপভোগ করে, দ্রুত ভাষা রপ্ত করতে থাকে, কোনো বিষয়ে বেশি সময় মনোযোগ ধরে রাখার সক্ষমতা অর্জন করে এবং নিজের মতো করে কিছু।

তবে শৈশবের গুরুত্বপূর্ণ এই সময়ে অনেক শিশুই যথাযথ সেবা থেকে বঞ্চিত হয়, যার অধিকাংশই হয় বাবা-মা কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে।

বাংলাদেশে মাত্র ৪৩ দশমিক ৫ শতাংশ শিশু প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রারম্ভিক শিক্ষা গ্রহণ এবং বিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত