প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় পূর্বের জিপিএ বহালের দাবিতে শাহাবাগে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের সমাবেশ

শরীফ শাওন: [২] ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা বলেন, হঠাৎ করে ঘোষণা দেয়া অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে। পূর্ববর্তী সিজিপিএ বহাল রেখে মেধা যাচাইয়ের সুযোগ সুনিশ্চিত করতে হবে।

[৩] বৃহস্পতিবার বিকেল ৪ টায় শাহাবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে সমাবেশে বক্তার বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পূর্বের জিপিএ ছিলো- মানবিক ৭, বাণিজ্য ৭.৫, বিজ্ঞান ৮। এখন প্রাথমিক বাছাইয়ের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে মানবিক ৮, বাণিজ্য ৮.৫, বিজ্ঞান ৮.৫।

[৪] বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, বর্তমান বাংলাদেশে শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের জনগণের অধিকার হরণ করা হচ্ছে। কাউকে অধিকার বঞ্চিত করে গণতন্ত্র হয় না, সুশিক্ষা হয় না। পরিপূর্ণ প্রস্তুতি থাকার পরও করোনা মহামারীর কারণে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি।

[৫] সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাবি শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী বলেন, সর্বত্র ছাঁটাই প্রকিয়া চলছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদেরকে অধিকার থেকে ছাঁটাই করতে ব্যস্ত।

[৬] বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের সভাপতি আতিফ অনিক বলেন, শিক্ষা সম্পর্কে ন্যূনতম ধারণা রাখেন না তারাই নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বসে আছেন। ফলে লক্ষ লক্ষশিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন নিয়ে অনিশ্চয়তা ও দুর্ভোগ বাড়ছে।

[৭] গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের সহ-সভাপতি সায়েদুল হক নিশান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের গবেষণাকাজে কোনো মনোযোগ নেই।

[৮] ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মিতু সরকার বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ফ্যাসিবাদী শাসনের মাধ্যমে জনগণকে নিপীড়ন নির্যাতন করে আসছে। শিক্ষাখাতকে বেসরকারি খাতে ঠেলে দেয়া হয়েছে। মাত্র ৬.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী সরকারি উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পায়। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রবল বৈষম্য চলছে, এই বৈষম্য দূর করতে হবে।

[৯] বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায় বলেন, পরীক্ষায় বসতে পারা শিক্ষার্থীদের অধিকার। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বশীল পদে আসীন হবার পর তারা শিক্ষার্থীদের অধিকারের কথা ভুলে যায়।

সর্বাধিক পঠিত