প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাভারে ছুরিকাঘাতে পুলিশ সদস্য আহতের ঘটনায় আটক ১০

এম এ হালিম: [২] সাভারে অভিযোগের ভিত্তিতে চাঁদাবাজের আটক করতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

[৩] বুধবার দুপুরে গ্রেপ্তার আসামীদের আদালতে পাঠানো হয়। এর আগে রোববার দিবাগত রাত ২ টার দিকে সাভারের আনন্দপুর এলাকার বিমান বিল্ডিং জামে মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

[৪] আহত পুলিশ সদস্য হলেন, কনস্টেবল মোহাম্মদ রাব্বি হোসেন (২৫), তিনি টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর থানার মৃত রকিব মিয়ার ছেলে। বর্তমানে সাভার মডেল থানায় কর্মরত রয়েছেন।

[৫] গ্রেপ্তাররা হলেন, গোপালগঞ্জ জেলার মোকসেছপুর থানার পলারগাতি গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে সাব্বির হোসেন (২৫), চাঁদপুর জেলার হাইমচড় থানার কমলাপুর গ্রামের মৃত মোসলেম খানের ছেলর জহিরুল ইসলাম (৩৮), ছবি শেখের ছেলে লাল মিয়া (২০), মোহাম্মদ আলী (২৮), হাসমত আলীর ছেলে আব্দুর রহিম বাবু, মোহাম্মদ রাসেদ (২৬), আলী আকবর খানের ছেলে নজরুল ইসলাম খান (৩৮), হামেদ আলীর ছেলে আল-আমীন (৩০), কামাল হোসেন (৩৩), খোকার ছেলে সুজন শিকদার (৪৩), সবাই সাভারের আন্দপুর এলাকার বাসিন্দা জানা গেছে। এছাড়া অজ্ঞাত আরও ৪ থেকে ৫ জনকে এই মামলায় আসামি করা হয়েছে।

[৬] মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ইকবাল হোসেন নামের এক বাসের কন্ট্রাক্টরকে ওই মসজিদের পাশের ছনের বনে ডেকে নিয়ে যায় সাব্বির ও জহিরুল। ইকবাল যাওয়ার পর দেখেন সেখানে আরও ১০ থেকে ১২ জন অপেক্ষা করছেন। কিছু বুঝে ওঠার আগে ইকবালের হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে মুখে ছেড়া কাপড় গুজে দেয়। তার পর ২৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। রাজি না হওয়ায় জোরপূর্বক ইকবালের পকেট থেকে ৫ হাজার ৩০০ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়।

[৭] দাবিকৃত চাঁদার বাকি টাকা দুই দিনের মধ্যে না দিলে প্রান নাশের হুমকি দিয়ে রাত দেড়টার দিকে তাকে ছেড়ে দেয়। পরে এক পথচারীর মোবাইল থেকে '৯৯৯' ফোন করে ইকবাল। রাত দু'টার দিকে ইকবালকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে যায় সাভার থানা পুলিশ। এসময় চাঁদাবাজরা ছনের বন থেকে বেড়িয়ে পুলিশের ওপর হামলা করে। তাদের মধ্যে সাব্বিরের ছুড়িকাঘাতে কনস্টেবল রাব্বি হোসেন (২৫) মারাত্মকভাবে আহত হয়। এসময় ১০জনকে আটক করে পুলিশ।

[৮] আসামিদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও পুলিশের ওপর হামলা ঘটনায় পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত