প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ঢাকা ব্যাংকসহ ১১ আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নেওয়ার নামে কোটি টাকা আত্মসাৎ, গ্রেপ্তার ৫

মাসুদ আলম: [৩] মঙ্গলবার রাজধানীর খিলগাঁও ও রামপুরা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করেছে ডিবির মতিঝিল বিভাগ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- আল আমিন ওরফে জামিল শরীফ, খ ম হাসান ইমাম ওরফে বিদ্যুত, আব্দুল্লাহ আল শহীদ, রেজাউল ইসলাম ও শাহ জাহান।

[৪] বুধবার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার হাফিজ আক্তার বলেন, চক্রটিকে জালিয়াতির কাজে সহায়তা করতো নির্বাচন কমিশনেরই নিম্ন শ্রেণির কয়েকজন কর্মকর্তা। এ ঘটনায় ৪৪ জনকে ইতোমধ্যে বরখাস্ত করেছে নির্বাচন কমিশন।

[৫] তিনি বলেন, চক্রটি ফ্ল্যাট বা প্লট কেনা-বেচার কথা বলে মালিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতো। একইসঙ্গে ব্যাংকে গিয়ে তারা ফ্ল্যাট কেনার জন্য ঋণ নেবে বলে পরামর্শ করে। চক্রটি ফ্ল্যাটের মালিকের কাছ থেকে এনআইডি এবং ফ্ল্যাটের কাগজপত্রের ফটোকপি নিয়ে আসতো। তারপর প্রতারকরা এনআইডি সার্ভারে ঢুকে ফ্ল্যাট মালিকের সব তথ্য হুবহু ঠিক রেখে ছবিটি পরিবর্তন করে নিতো। সেই অনুযায়ী টিন সার্টিফিকেট ও ট্রেড লাইসেন্স তৈরি করতো। এর মাধ্যমে প্রতারকদের মধ্যেই কেউ ফ্ল্যাটের মালিক বনে যান। সার্ভারে পাল্টে দেওয়ার ফলে ব্যাংকের লোকরা এনআইডির ওয়েবসাইটে চেক করে সবকিছু সঠিক দেখতে পেতেন।

[ ৬] তিনি আরও বলেন, সেই অনুযায়ী ব্যাংকের লোকজন প্রতারকদের অফিস পরিদর্শনে আসতেন। ১-২ মাসের জন্য বাসা ভাড়া নিয়ে সাজানো অফিস বানাতো চক্রটি। সেই অফিসে ব্যাংক কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ফ্ল্যাট রেজিস্ট্রেশন করা হতো। সবকিছু ঠিক থাকায় ব্যাংকও ঋণ দিয়ে দিতো। লোনের কিস্তি পরিশোধের সময় এলে পরিশোধ না করায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বুঝতে পারেন প্রতারিত হয়েছে।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত