প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

২ বছর পর ড্রাইভিং লাইসেন্সের জট খুলেছে

ডেস্ক রিপোর্ট: দরপত্র জটিলতার কারণে টানা ২ বছর বন্ধ থাকার পর আবেদনকারীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়ার কাজ শুরু করেছে বিআরটিএ। মুজিববর্ষে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ‘বিশেষ সেবা সপ্তাহ’র প্রথম দিনে রোববার গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ ও মানিকগঞ্জসহ চার জেলায় ড্রাইভিং লাইসেন্সের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন শুরু হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। একুশে পত্রিকা

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ পর্যন্ত সেবা সপ্তাহ পালন করবে বিআরটিএ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বিভাগীয় পর্যায়েও লাইসেন্স প্রদানের কাজ শুরু করা হবে। লাইসেন্স সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে (ভেন্ডর) সর্বোচ্চ পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ কাজ করতে হবে।’

বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, লাইসেন্স সমস্যার সমাধান হলো। আর ভোগান্তিতে পড়তে হবে না আবেদনকারীদের। চেয়ারম্যান আশাবাদী পর্যায়ক্রমে সব সার্কেলে লাইসেন্স প্রদানের কাজ শুরু করা যাবে। নির্ধারিত তারিখে আবেদনকারীদের লাইসেন্স দেওয়া সম্ভব হবে।

সেবা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিআরটিএ’র সেবা পেতে এখনো ভোগান্তি রয়েছে। এখনো দালালদের দৌরাত্ম্য রয়েছে। বিআরটিএর কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সঙ্গে দালালদের সখ্যতা ও যোগাযোগ রয়েছে। তবে প্রযুক্তির ব্যবহারে তা কমে আসছে। ডিজিটাল সেবার আওতা বাড়ানো গেলে দুর্নীতি ও অনিয়ম অনেকটা কমে যাবে। বদলি ও পদোন্নতির জন্য রাজনৈতিক তদবির বন্ধ করতে হবে বিআরটিএ কর্মকর্তাদের। যারা তদবির করবে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বিভাগীয় কমিশনারদের নির্দেশনা দিয়ে বলেন, সড়কে অনিয়ম বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে হবে। ফিটনেসবিহীন ও বেপরোয়া গাড়ি বন্ধ করতে হবে।

সড়ক পরিবহন সচিব নজরুল ইসলামসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সেবা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

উল্লেখ্য, ‘ডুয়েল ইন্টারফেস পলিকার্বনেট স্মার্ট কার্ড’-এ ছাপা ৪০ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্স সরবরাহের কাজ পেয়েছে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান ‘মাদ্রাজ সিকিউরিটি প্রিন্টারস প্রাইভেট লিমিটেড’। গত বছরের ২৯ জুলাই প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে ১২০ কোটি টাকার এ প্রকল্পের চুক্তি হয় বিআরটিএর। এর সাত মাস পর লাইসেন্স মুদ্রণের কাজ শুরু হয়েছে।

এর আগে ‘টাইগার আইটি’ ২০১৬ সালে পাঁচ বছরে ১৫ লাখ লাইসেন্স সরবরাহের কাজ পেয়েছিল। ২০১৮ সালের আগস্টে নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশব্যাপী ছাত্র আন্দোলনের পর লাইসেন্সের আবেদনকারীর সংখ্যা কয়েক গুণ বেড়ে যাওয়ায় নির্ধারিত সময়ের আগেই লাইসেন্স ফুরিয়ে যায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত