প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] এলপি গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধিতে দিশেহারা বাঘার গ্রাহকরা

আতাহার আলী : [২] এর ফলে সাধারণ জনগণের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। এ উপজেলায় সরকারী ভাবে গ্যাস সংযোগের ব্যবস্থা না থাকলেও হাজার-হাজার মানুষ এখন এলপি গ্যাস ব্যবহার করে।

[৩] জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে দু’দফা গ্যাসের দাম বাড়ানোর ফলে অর্থাৎ দু’ মাসের ব্যবধানে গত বছরের তুলনায় গ্যাসের দাম সিলিন্ডার প্রতি ২০০ থেকে ২৫০ টাকা বেড়েছে। হঠাৎ করে এলপি গ্যসের এ মূল্য বৃদ্ধিতে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো হিমশিম খাচ্ছে।

[৪] পহেলা জানুয়ারি ২১ তারিখের এর আগে বসুন্ধরা গ্যাসের মূল্য ছিল ৮৩০ টাকা জানুয়ারীতে মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে ৯৫০ টাকা, ফেব্রুয়ারিতে আরো ১১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ১০৬০ টকা। অন্যদিকে যমুনা গ্যাসের মূল্য ছিল ৮৩০ টাকা। জানুয়ারিতে বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৯৪০ টাকা, ফেব্রুয়ারীতে আরো ১১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ১০৫০ টাকায় ।

[৫] বাঘা উপজেলায় জ্বালানি কাজে খরকুঠা, বিভিন্ন গাছের খড়ি ক্রয় করে ব্যবহার করতেন। সেগুলো অনেকটা সংকট দেখা দিয়েছে এবং খড়ির মুল্য প্রায় দ্বিগুন বিৃদ্ধি পেয়েছে। তাই এ উপজেলায় বর্তমান হাজার হাজার মানুষ এলপি গ্যাস ব্যবহার করছে। কিন্তু দু’দফা দাম বৃদ্ধিতে তাদের দুভোগ চরমে পৌঁছেছে। মানুষের এসব দুর্ভোগ দেখার জন্য যেন কেউ নেই। ফলে এলপি গ্যাসের অনেক গ্রাহককে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। এলপিজি গ্রাসের মূল্য সরকার কতৃক নির্ধারন করে দিয়ে কম্পানিগুলোর লাগাম টেনে ধরার দাবি জানান গ্রাহকরা।

[৬] বাঘা পৌরসভার বানিয়া পাড়া গ্রামের গৃহবধু হাফিজা বেগম বলেন, দ্রব্যমুল্যের উর্দ্বগতিতে এমনিতেই আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে, তার ওপর গ্যাসের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধিতে আমরা দিশেহারা। তিনি আরো বলেন, গত দেড় মাসের ব্যবধানে প্রতি সিলিন্ডার গ্যাসের মূল্য আড়াইশত টাকা বৃদ্ধি পেয়ছে অথচ দেখার কেউ নেই।

সর্বাধিক পঠিত