প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মিয়ানমারে সামরিক শাসন অবসানের আহ্বান জানিয়ে চাকরি হারালেন জাতিসংঘে নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত

আখিরুজ্জামান সোহান : [২] সামরিক সরকারের বিরোধিতা করে জনগণের কাছে হিরো হলেও জান্তার কাছে ভিলেন হিসেবেই চিহ্নিত হলেন কিয়াও মোয়ে তুন। তাকে শুধু বরখাস্ত নয়, তাকে রাষ্ট্রদ্রোহী বলে অভিযুক্ত করেছে সামরিক সরকার। জাতিসংঘে নিযুক্ত কোনও দেশের রাষ্ট্রদূত তার নিজের সরকারের সমালেচনা করেছেন, এরকম ঘটনা আগে কখনও ঘটেনি। কিয়াও মোয়ে তুন আন্তর্জাতিক সম্প্রাদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যেনো কোনওভাবেই ক্ষমতায় সেনাবাহিনীকে টিকতে দেওয়া না হয়। রয়টার্স

[৩] মিয়ানমার নিয়ে বিশেষ বৈঠকে কিয়াও মোয়ে তুন জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্রগুলোর প্রতি তার দেশের সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য বিবৃতি জারি করে কঠোর ভাষায় নিন্দা জানানোর আহ্বান জানান। রাষ্ট্রগুলোকে সেনাশাসকদের স্বীকৃতি প্রদান বা তাদের সহযোগিতা না করার অনুরোধ জানানোর পাশাপাশি দাবি জানান, গত বছর মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত গণতান্ত্রিক নির্বাচনের ফলাফলের প্রতি জান্তাশাসকেরা যাতে শ্রদ্ধা দেখায়, সে লক্ষ্যে চাপ সৃষ্টি করা হয়। এএফপি

[৪] বর্মিজ ভাষায় বক্তব্য শেষে তিন আঙুল উঁচিয়ে স্যালুট দেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত। মিয়ানমারে সেনাশাসনবিরোধী চলমান আন্দোলনে জান্তা সরকারকে বিদায় করার প্রতীকী চিহ্ন হিসেবে এভাবে তিন আঙুল উঁচিয়ে বিক্ষোভকারীদের স্যালুট প্রদর্শন করতে দেখা গেছে। রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘অবিলম্বে সামরিক অভ্যুত্থানের অবসান ঘটাতে, নিরীহ লোকজনের ওপর নির্যাতন বন্ধে, জনগণের কাছে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ফিরিয়ে দিতে ও গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় আন্তর্জাতিক স¤প্রদায়ের কাছ থেকে সম্ভাব্য কঠোরতম পদক্ষেপ প্রয়োজন আমাদের।’ বিবিসি

[৫] জান্তাবিরোধী বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহিংস আচরণ থামাতে সম্ভব কঠোরতম পদক্ষেপ নিতেও জাতিসংঘের প্রতি আহŸান জানিয়েছেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত। তিনি বলেন, ‘আমরা গণতান্ত্রিক সরকারের জন্য লড়াই অব্যাহত রাখব; যে সরকার জনগণের সরকার, জনগণের দ্বারা নির্বাচিত ও জনগণের স্বার্থে পরিচালিত।’ রাষ্ট্রদূতের এই বক্তব্যকে বিপুল করতালি দিয়ে স্বাগত জানান সাধারণ পরিষদের সদস্য দেশের প্রতিনিধিরা।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত