প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পুঠিয়ায় মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ গাড়ি

ডেস্ক নিউজ: ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের ২৭ কিলোমিটার এলাকা পুঠিয়া উপজেলার মধ্যে পড়েছে। যথাযথ কর্তৃপক্ষের নজরদারির অভাবে এই ২৭ কিলোমিটার এলাকায় সার্বক্ষণিক দাপিয়ে চলছে শত শত অবৈধ গাড়ি। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ‘বিশেষ সমঝোতা’ থাকায় অবৈধ যানের বিরুদ্ধে কখনো আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হয় না।

ফলে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে অবৈধ যানবাহন। এতে প্রায়ই নিয়ন্ত্রণহীন গাড়ির কারণে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে অপরাপর যানবাহন। বাড়ছে জনদুর্ভোগ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পুঠিয়া উপজেলায় ভাটার ইট ও মাটি বহন করতে প্রায় ৫ শতাধিক অবৈধ ট্রলি-ট্রাক্টর ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে চলাচল করছে। সূত্র: রাজশাহী নিউজ২৪.কম, দৈনিক ইত্তেফাক অনলাইন

সেই সঙ্গে প্রায় ৩ শতাধিক লেগুনা, থ্রি-হুইলার, সিএনজিও চলাচল করছে। এদের মধ্যে বেশির ভাগ গাড়ির বৈধ কোনো কাগজপত্র নেই।

প্রতিদিন কাক ডাকা ভোর হতে গভীর রাত পর্যন্ত গ্রাম থেকে শুরু করে উপজেলা সদরের ব্যস্ততম সকল রাস্তার সবখানে এই যন্ত্রদানব অবৈধ ট্রাক্টর (কাঁকড়া) টলি স্বগৌরবে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। নছিমন-করিমন এর মতো অবৈধ ভটভটির সঙ্গে এখন সড়কে যুক্ত হয়েছে ‘ইটভাটার ট্রলি’আতঙ্ক।

তাছাড়াও মাটি বহনকারী এ যানবাহন যেসব সড়ক দিয়ে চলাচল করে, এর ধুলাবালির কারণে সড়কে হেঁটে চলাচলকারী জনসাধারণ এবং স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি,পরিবেশ নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি শব্দদূষণ হচ্ছে।

এদিকে অনভিজ্ঞ চালক ও লক্কড়-ঝক্কড় যান দিয়ে মাটি বহন করতে গিয়ে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। আইন অমান্য করে মরন যান এসব ট্রাক্টর (কাঁকড়া) ট্রলি রাস্তায় চলাচল করলেও অদ্যাবধি অদৃর্শ্য কারনে আইনগত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না উর্ধতন কতৃপক্ষ। স্থানীয় প্রশাসন অবৈধ এ যানবাহন চলাচল করতে সহযোগিতা করছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, পুঠিয়া উপজেলায় বর্তমানে বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে ১৭ টি ভাটা রয়েছে তার মধ্যে বৈধ ৩টি। এইসব ভাটাগুলোর মাটি, বালু, ইটসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী বহনে ট্রাক্টর ও পাওয়ার টিলারচালিত ট্রলির ওপর নির্ভরশীল। গড়ে প্রতিটি ভাটায় ১০টি করে এমন যান রয়েছে। সেই হিসাবে পুঠিয়াতে সড়ক-মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ২০০টিরও বেশি ‘ইটভাটার ট্রলি’।

রাজশাহী জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান পটল বলেন, সড়কে প্রতিটি দুর্ঘটনার জন্য অবৈধ যানবাহন দায়ী। বৈধভাবে যানবাহন চালাতে গাড়ির নিবন্ধন, বিমা, রুট পারমিট ও ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা আবশ্যক।

কৃষিকাজের জন্য ট্রাক্টর ও পাওয়ার টিলার ব্যবহারের শর্ত থাকলেও এগুলো অবৈধভাবে মহাসড়কে ইট, বালু ও মাটি বহন করছে। মাটি বহনের সময় তা রাস্তায় পড়ছ, সামান্য বৃষ্টিতেই কাঁদামাটিতে রাস্তা চলাচলের অযোগ্য হয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত