প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ফেনীর সোনাগাজীতে সবজির বাম্পার ফলনেও দাম না থাকায় হাসি নেই কৃষকের মুখে

শাহজালাল: [২] প্রতি বছরের ন্যায় এবারও প্রায় ১৫০ শতক জমিতে শীতকালীন সবজি ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমাটো, মরিচ, খেসারি আবাদ করেছেন।

[৩] তার আবাদকৃত ৬০ শতক জমিতে প্রায় ছয় হাজার ফুলকপি ও দুই হাজার বাঁধাকপির চাষে বাম্পার ফলন হয়েছে। তবুও নেই কৃষক আবুল কালামের মুখে হাসি। গত মৌসুমের চেয়ে এ মৌসুমে ফুলকপির ফলন অনেক বেশি হয়েছে। ফলন বেশি হওয়ার পরেও গুণতে হচ্ছে লোকসান। যার ফলে হতাশায় ভোগছেন আবুল কালাম ও তার মত সবজি চাষিরা।

[৪] কৃষক আবুল কালাম জানান, এ মৌসুমে কপির ফলন অন্য বছরের চেয়ে অনেক বেশি হয়েছে। কিন্তু ফলন ভালো হলেও সঠিক মূল্য পাওয়া যাচ্ছে না। প্রতিটি কপি ফলানোর জন্য প্রায় দশ টাকা খরচ হচ্ছে। কিন্তু ফুলকপি বাজারে বিক্রি করতে গেলে দাম পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ১০ টাকা বাঁধাকপি ৫-৬ টাকা! সরকারিভাবে কোনো প্রণোদনা, সাহায্য সহযোগিতা না পাওয়ায় এজন্য ফলন বেশি হওয়ার পরও নেই কৃষকের মুখে আনন্দের হাসি।

[৫] সোনাগাজী সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সামছুল আরেফিন জানান, কৃষক যাতে ন্যায্য মূল্য পায় সেজন্য কৃষি অফিস বিষয়টি তদারকি তথা সরকারের দ্রুত তদারকি প্রয়োজন।

[৬] ইমাম উদ্দিন সাইমুন নামের স্থানীয় একজন ভোক্তা জানান, আসলে মৌসুমের শুরুতে যখন বাহির থেকে এসব সবজি বাজারে আসে তখন আমরা চড়া মূল্যে ক্রয় করি, আর যখন আমাদের স্থানীয় কৃষকরা আবাদ করে তখন বাজারে চাহিদার তুলনায় যোগান বেড়ে যাওয়ায় দাম কমে, সেক্ষেত্রে স্থানীয় কৃষকদের স্বার্থ রক্ষায় সরকারি প্রণোদনা জরুরি।

[৭] এ প্রসঙ্গে মতামত জানতে সোনাগাজী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন মজুমদারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যস্ততার কারণে বিষয়টি সম্পর্কে পরবর্তীতে জানাবেন বলে সংযোগ কেটে দেন।

 

 

 

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত