প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কোম্পানীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের হরতাল চলছে

ডেস্ক রিপোর্ট: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় অনির্দিষ্টকালের হরতাল চলছে। বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের এ হরতাল শুরু হয়েছে। যুগান্তর, নিউজ২৪

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ থানার সামনে থেকে অনির্দিষ্টকালের এ হরতালের ঘোষণা দিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা।

এদিকে আজ সকাল থেকে বসুরহাট পৌরসভা এলাকায় কোনো যানবাহন চলাচল করছে না। অধিকাংশ দোকানপাটও বন্ধ রয়েছে।

এর আগে সন্ধ্যা ৭টার দিকে নোয়াখালী জেলা প্রশাসক মো. খোরশেদ আলম খান, পুলিশ সুপার মো. আলমগীর, কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনি, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. রবিউল হককে প্রত্যাহার এবং কোম্পানীগঞ্জের চরকাঁকড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা (সন্ত্রাসী) ফখরুল ইসলাম সবুজ, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, ফখরুল ইসলাম রাহাতকে গ্রেফতারের দাবিতে নেতাকর্মীদের নিয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার সামনে অবস্থান নিয়ে থানা ঘেরাও ও অবরুদ্ধ করেন মির্জা কাদের।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টেকেরবাজারে আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ তার কিছু অনুসারীকে নিয়ে আবদুল কাদের মির্জার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেন। সমাবেশে সবুজ মেয়র মির্জার বিরুদ্ধে অশালীন বক্তব্য দেন।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ফখরুল ইসলাম সবুজকে আটক করে পরে ছেড়ে দিয়েছে, এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে নিজের নেতাকর্মীদের নিয়ে থানা ঘেরাও করেন কাদের মির্জা। বিক্ষোভকারীরা থানার সামনের সড়কসহ পৌরসভার কয়েকটি সড়ক বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে।

আবদুল কাদের মির্জা বলেন, দায়িত্বে অবহেলার জন্য ডিসি, এসপি, ওসি, ওসিকে (তদন্ত) প্রত্যাহার, সন্ত্রাসী ফখরুল ইসলাম সবুজ, তার আশ্রয়দাতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল ও ফখরুল ইসলাম রাহাতকে গ্রেফতার না করা পর্যন্ত এ আন্দোলন চলবে।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনির বক্তব্য নিতে বারবার মোবাইলে চেষ্টা করার পরও তাকে পাওয়া যায়নি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত