প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] নতুন আইনে বিক্ষোভকারীদের জন্য ২০ বছরের সাজার বন্দোবস্ত করলো মিয়ানমারের সেনাবাহিনী

লিহান লিমা: [২] গত ১ ফেব্রুয়ারি সামরিক জান্তার ক্ষমতা দখলের প্রতিবাদে মিয়ানমারে টানা বিক্ষোভ চলছে। আন্দোলনকারীদের ওপর নির্যাতন, দমন-পীড়ন ও গণহারে গ্রেপ্তার চালানোর পর এবার দেশটির সেনাবাহিনী বিক্ষোভকারীদের আদেশ অমান্য করলে ২০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে নতুন আইন জারি করেছে। বিবিসি/গার্ডিয়ান/আল জাজিরা

[৩]বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধাচারণ করলে, সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে ঘৃণা বা উত্তেজনা ছড়ালে দীর্ঘমেয়াদে শাস্তি ও জরিমানা করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। সেনাবাহিনীর জারি করা বিবৃতিতে, সেনাবাহিনীর অবমাননা হয় এমন কোনো চিহ্ন, লেখা বা প্রকাশ্য কোনো কিছুতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নিরাপত্তা বাহিনীকে দায়িত্ব পালনে বাধা দিলে ২০ বছরের কারাদণ্ড ও ভয় এবং উত্তেজনা ছড়ালে ৩ থেকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হবে।

[৪] বিক্ষোভকারীরা দেশটির নেত্রী অং সান সু চীসহ গ্রেপ্তার হওয়া অন্যান্য রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তির দাবী করছেন। সু চীর বিরুদ্ধে গত নভেম্বরের নির্বাচনে ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে তদন্তের ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সামরিক বাহিনী।

[৫]মিয়ানমারের স্থানীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার দেশটির গুরুত্বপূর্ণ শহর ও সড়কে সশস্ত্র যান দেখা গিয়েছে, কয়েকজনকে আটক করার ছবিও পাওয়া গিয়েছে। ইয়াঙ্গুনের রাস্তায় কড়া সেনা নিরাপত্তা দেখা গিয়েছে। দেশটির কাচিন রাজ্যে ৫ সাংবাদিককে আটকের পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে। মানদালাতে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে তাদের ওপর গুলি বর্ষণ করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। হতাহতের সংখ্যা নিশ্চিত হওয়া যায় নি। মিতকেনিয়াতে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে জান্তা সরকার বিরোধী বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়েছে।

[৬] নেপিদোর হাসপাতালের এক ডাক্তার বলেন, ‘কারফিউ জারি করে দেয়া বিবৃতিতে রাত আটটা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত বাহিরে বের না হতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আমি আতঙ্কিত, উদ্বিগ্ন। এর আগে তারা বাড়িঘর ভাঙচুর করে মানুষকে অবৈধভাবে গ্রেপ্তার করেছে।’ ইয়াঙ্গুনের মার্কিন দূতাবাস নিজেদের নাগরিকদের কারফিউ চলাকালীন ঘরে থাকতে নির্দেশ দিয়েছে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত