প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৫০ হাজার ডলারে বিটকয়েনের দাম

রাশিদ রিয়াজ : দুই বছর আগে ২০১৭ সালে এক বিটকয়েনের মূল্য ১০ হাজার ডলার ছাড়াতে পারে, এমন পূর্বাভাস যখন সিএনবিসি’র এক জরিপে বলা হয় তখন অনেকেই হতবাক হয়েছিলেন। ওই জরিপে প্রায় অর্ধেক অংশগ্রহণকারী এমন আভাস দিয়েছিল ডিজিটাল মুদ্রা বা এই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে। এখন বিটকয়েন অতীতের সকল রেকর্ড ভেঙ্গে ৫০ হাজার ডলার ছাড়িয়ে গেছে। মার্কিন শীর্ষ কোটিপতি এলনমাস্ক স্বীকার করছেন তার বৈদ্যুতিক গাড়ি কোম্পানি টেসলা বিটকয়েনে দেড় বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। এবং তিনি তার শিশু সন্তানটির জন্যেও এধরনের ডিজিটাল মুদ্রা কিনেছেন। উবার সহ অনেক কোম্পানি ক্রিপ্টোকারেন্সিতে লেনেদেনে রাজি হয়েছে। পেপাল ক্রিপ্টোকারেন্সিতে লেনদেনকে স্বীকৃতি দিয়েছে। গত বছর থেকেই হু হু করে বাড়ছে ক্রিপ্টোকারেন্সির দর। এ দর বৃদ্ধির পাল্লায় এগিয়ে আছে বিটকয়েন। পোর্টাল কয়েনডেস্ক জানিয়েছে অন্তত ২০টি ভিন্ন ভিন্ন লেনদেনের প্লাটফর্মে বিটকয়েনের মূল্য উঠেছে ৪৯ হাজার ১৪৩ ডলার। সর্বশেষ মোট ৩.৩৩ শতাংশ মূল্য বৃদ্ধি পেলে তা ৫০ হাজার ডলারে চড়ে যায়। স্পুটনিক/আরটি

এর আগে ব্লুমবার্গ বিশেষজ্ঞদের আভাস দিয়ে বলেছিল ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠান লুনো ও ব্রোকারেজ ফার্ম ওএসএল আভাস দিয়েছে বিটকয়েনের মূল্য ৫০ হাজার ডলার ছাড়িয়ে যেতে পারে। সেটাই সত্যি হল। বিনিয়োগকারীরা স্বর্ণের চাইতেও বিটকয়েনে বিনিয়োগ প্রাধান্য দেওয়ায় ক্রিপ্টোকারেন্সিটির মূল্য লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এবছরের শুরুতে ক্রিপ্টোকারেন্সির বাজার মূল্য ১ ট্রিলিয়ন ডলার বা এক লাখ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যায়। করোনাভাইরাস মহামারী ও অর্থনৈতিক সংকটে লকডাউনে বিনিয়োগের বিকল্প সুযোগ হিসেবে অনেকে বিটকয়েনে বিনিয়োগ করায় গত বছর এ ডিজিটাল মুদ্রার দর বৃদ্ধি পেয়েছে ৩৪০ শতাংশ।

২০১৭ সালে সিএনবিসি’র ওই জরিপে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল বিটকয়েনের মূল্য কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে? উত্তরে ২৩,১১৮ জনের মধ্যে ৪৯ শতাংশ বলেছিলেন এক বিটকয়েনের দাম ১০ হাজার ডলার ছাড়াবে। তবে অনেক দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এখনো বিটকয়েনে লেনদেন বা বিনিয়োগকে বৈধতা দেয়নি। ব্যাংকিং ও আর্থিক সেবাদাতা মার্কিন প্রতিষ্ঠান জেপি মরগ্যান চেজ-এর প্রধান নির্বাহী জেমি ডিমন বিটকয়েন-এর সমালোচনা করে বলেছিলেন এধরনের লেনদেন ‘জালিয়াতি’। এখনো বিটকয়েনের দর ৫০ হাজার ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ায় অনেকে শঙ্কা করে বলছেন, আপনি যদি এটি কেনার মতো যথেষ্ট নির্বোধ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি একদিন এর জন্য মূল্য দেবেন। দুই বছর আগে সিএনবিসি’র ওই জরিপে ১৬ শতাংশ বলেছিলেন, চূড়ান্ত পর্যায়ে বিটকয়েনের মূল্য ছয় থেকে আট হাজার ডলার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাদের পূর্বাভাস মিথ্যা প্রমাণ করলেও বিটকয়েনের মূল্য কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সে আভাসও কেউ হলফ করে বলতে পারছে না। কারণ ২০১৭ সালেও ডিজিটাল মুদ্রার দাম বেড়েছিল ৪৭৩ শতাংশ। তখন বলা হয়েছিল ছয় হাজার ডলার স্পর্শ করতে এটি খুব বেশি দূরে নেই।

সর্বাধিক পঠিত