প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইমামের মসজিদ ইসলামি স্থাপত্যে বিচ্ছুরত মুক্তা

রাশিদ রিয়াজ : মসজিদটির গম্বুজটি দেখে ইসলামি স্থাপত্যশৈলীর অন্যতম নিদর্শন ফিরোজা রংয়ের মোহনীয় সৌকর্য দেখে দর্শনার্থীরা অভিভূত হয়ে পড়েন। মসজিদটির আসল নাম হচ্ছে মসজিদে শাহ বা শাহ মসজিদ। সাফাবি রাজা শাহ আব্বাসের শাসনামলে ১৬১১ সালে এটি নির্মিত হয়। শাহ আব্বাস ১৫৮৮ থেকে ১৬২৯ সাল পর্যন্ত রাজত্ব করেন। তার শাসনামলের শেষ বর্ষে মসজিদটির নির্মাণ পুরোপুরি শেষ হয়। মসজিদটির স্মৃতিস্তম্ভটির নিখুঁত আকার ও এর অবিশ্বাস্য অলঙ্করণ দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করে। মসজিদের ভেতরে সঠিক পরিমাপে নীল রংয়ের মোজাইক স্থাপত্যের তুলনামূলক অনুপাতে আরেক নিদর্শন।

মসজিদটির মনোরম বিশাল প্রবেশদ্বার স্বাগত জানায় দর্শনার্থীদের। মক্কা নগরী অভিমুখে মসজিদটির অবস্থান। ছোট একটি করিডোর মসজিদটির ভেতরের সঙ্গে বাইরের পথকে যুক্ত করেছে। চারপাশে ঘেরা রয়েছে চারটি স্তম্ভ। চত্ত্বরের মাঝখানে রয়েছে ফোয়ারা। নীল, হলুদ মিলিয়ে সাত রংয়ের টাইলসের কারুকাজ দেখে অভিভূত হয়ে পড়েন দর্শনার্থীরা। স্তম্ভের গায়ে বেয়ে ওঠা লতাগুল্মের কারুকাজ আর শোভিত ফুল দেখার মত। ক্যালিওগ্রাফির শিলালিপি মসজিদের বাড়তি আকর্ষণের আরেক দিক। মসজিদের পাশেই আরেকটি মসজিদ যেটি শেখ লোতফোল্লাহ মসজিদ হিসেবে পরিচিত এবং এটি শাহ আব্বারেস শ্বশুরের স্মৃতি রক্ষায় নির্মিত। শেখ লোতফোল্লাহ লেবানন থেকে এসেছিলেন শাহ মসজিদের নির্মাণকাজ তদারকির জন্যে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত