প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুনশি জাকির হোসেন : এখন যারা আল-জাজিরা নিয়ে মাতম করছেন, তারা কারা? তাদের শ্রেণি চরিত্র কী?

মুনশি জাকির হোসেন : এখন যারা আল-জাজিরা নিয়ে মাতম করছেন, তারা কারা? তাদের শ্রেণি চরিত্র কী? তাদের নিকট অতীত কী বলে? তারা কেন নিজেকে মুখোশের আড়ালে রাখে? তারা কী চান? তাদের আল্টারিওর মোটিভ কী? তাদের যুক্তি, তর্ক, আলোচনার লজিক কী? তাদের তত্ত¡, তথ্যের উৎস কী? প্রথমত, তাদের বেশির ভাগই নিজেকে অরাজনৈতিক দাবি করে। পরে মগজের কষা রোগ দেখিয়ে বলে, আমি রাজনীতি পছন্দ করি না, কিংবা রাজনীতি ঘৃণা করি।

অথচ তাদের আচরণ সর্বদা রাজনৈতিক। তারা বঙ্গবন্ধুকে মানে, তবে জিয়াকেও ক্রেডিট দিতে চায়। ঝাঁড় সমেত তাদের সকলেই ভারতের তীব্র বিরোধী,পাকিস্তানের অপকর্মে তারা কবরের নিরবতা অবলম্বন করে। তারা গণতন্ত্রের নামে গ্রেনেড শীষ এবং দাড়ি-পাল্লা ধমাধমের বাই ডিফল্ট ভোটার।

তারা যুদ্ধপরাধের বিচার চেয়েছিলো যদি, তবে, এবং, অথচ, এসব অব্যয় যুক্ত করে। অথচ নিত্য প্রতিটি পদক্ষেপের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিলো। তারা পদ্মা সেতুর বিষয়েও ঘ্যোৎ ঘ্যোৎ করেছিলো। তারা আগুন সন্ত্রাসের সময়ে শীতনিদ্রায় ছিলো। তারা কাঠমোল্লা, কাঠ বলদ, ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে নিরব থাকে। বিশে^র কোথাও মুসলিম মরলে তারা শোকে দিশেহারা হয়ে গেলেও নিজ দেশে নন-মুসলিমের উপর অত্যাচারে মুখে তালা মেরে বসে থাকে। তারা সাঈদী মুক্তি পরিষদের নীরব অথবা প্রকাশ্য, অথবা, মৌন সমর্থক।

তারা মনে করে, আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে ব্যবসা করে এবং মুক্তিযুদ্ধ শব্দটাকে তারা প্রতিদিন কটাক্ষ করে। তারা ভারতে ধর্মনিরপেক্ষ সরকার চায়, বাংলাদেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম চায়। ভাস্কর্য, মূর্তি, ছবি তোলা, গান শোনা, এগুলোতেও তারা বেশ রসিক। তারা উত্তর আধুনিক জীবন যাপনে এনজয় করে কাঠমোল্লাদের ফতোয়ার পক্ষে জোয়াল টানে। নিজে আধুনিক জীবনযাপন করে, নিজ সন্তানকে আধুনিক শিক্ষা দেবে, মাদ্রাসাতে সংস্কারের বিপক্ষে খাড়াবে।

তাদের সঙ্গে আপনি আজ যে তর্ক, বিতর্ক করবেন আগামীকাল, আগামী সপ্তাহ, আগামী মাস, আগামী বছর, আগামী দশকে গিয়ে দেখবেন একটি সময় অপচয়ের ভান্ডার তারা খুলে বসেছিলো। যে বিষয়ে তারা কথা বলতো তার কোনো ভিত্তি ছিলো না, গ্রহণযোগ্যতা ছিলো না। ছিলো শুধু কালেক্টিভ ম্যাডনেস, বিভ্রান্তি, মিথ্যা, বিকৃত, অসত্য, গুজবের পসরা। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত