প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ৫০ বছর পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৮ গ্রামের মধ্যে সড়ক সংযোগ

তৌহিদুর রহমান: [২] ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার ভাটি এলাকা বাদৈর ইউনিয়নের ৮টি গ্রামের মধ্যে নিবিড় সড়ক যোগাযোগ স্থাপন করেছেন এলাকাবাসি।

[৩] অনুদানের অপেক্ষায় না থেকে জনগনের দাবী মেটাতে নিজেই ব্যক্তিগত অর্থে কাজ শুরু করেন ইউপি চেয়ারম্যানসহ এলাকাবাসি। প্রতিটি গ্রামের মধ্যে অভ্যন্তরীন ও উপজেলা সদরের সাথে সংযোগ স্থাপন করে আদর্শ ইউনিয়ন গঠন করতে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান আবু জামাল।

[৪] পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী খাড়েরা ইউনিয়নের দেলী, পাতাইসার, সুলতানপুর গ্রামকেও নির্মাণাধীন সড়কের সঙ্গে সংযুক্ত করে উপজেলা সদরে যাওয়ার পথকেও সুগম করেছেন। এতে বাদৈর ইউনিয়নের মান্দারপুর গ্রাম সহ প্রায় লক্ষাধিক মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা সুদৃঢ় হয়েছে।

[৫] স্বাধীনতার পর দু’বার শিকারপুর থেকে দেলী সংযোগ সড়কটি নির্মান করার চেষ্টা করা হলেও এই সড়ক নির্মান করা সম্ভব হয়নি কয়েকজন ভূমি মালিকের বাধার কারণে।

[৬] শিকারপুর গ্রামের হাজী সোলায়মান জানান, মাত্র ১৫ দিনের ব্যবধানে ৫ লাখ টাকা মুল্যের জমি ১০ টাকায় বিক্রি করেছি। একই গ্রামের রহমত উল্লাহ জানান, আমার পুকুরের পাশ দিয়ে রাস্তা যাওয়ায় আমি অনেক উপকৃত হয়েছি।

[৭] এছাড়াও তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুদল হাই ওরফে দাগু ভূইয়া বাড়ী পর্যন্ত প্রায় পৌনে এক কিলোমিটার আরো একটি নতুন সড়ক তৈরি করেছেন। ওই পাড়ার প্রায় ২শ পরিবার এই গ্রামের সাথেই এক প্রকার বিচ্ছিন্ন ছিলো।

[৮] কসবা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাপস চক্রবর্তী জানান; বাদৈর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আবু জামাল খান একজন জনবান্ধব চেয়ারম্যান। প্রকল্প অনুমোদনের পূর্বেই নিজের অর্থায়নে কাজ শুরু করে ফেলেন।

[৯] এ প্রসঙ্গে চেয়ারম্যান হাজী আবু জামাল খান বলেন; মানুষের সেবার মাঝে মনে তৃপ্তি পাই। আমি এই অবহেলিত বাদৈর ইউনিয়নকে একটি আদর্শ ইউনিয়ন হিসেবে গড়তে চাই। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত