প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যশোরে হাইওয়ে থানা পুলিশ পরিচয়ে চাঁদা দাবি, ভূয়া পুলিশ রবিউল গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক: হাইওয়ে পুলিশ পরিচয় দিয়ে যশোর সদরের ঝিনাইদহ সড়কের ক্যান্টনমেন্ট এলাকার বিনোদিয়া পার্কের নিকটে আলম সাধু ঠেকিয়ে দুই হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। এ ঘটনায় সেনাবাহিনীর সহায়তায় ভূয়া পুলিশ রবিউল ইসলাম নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে। সে যশোর শহরের পুরাতন কসবা হোল্ডিং ৭৪৩/এ বর্তমানে পালবাড়ী পাওয়ার হাউজের ভিতরের মোজাম্মেল মোল্লার ছেলে। ঘটনাটি মঙ্গলবার ২ ফেব্রুয়ারী বিকেলের।

চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার বাঁকা মাঠপাড়ার মোচাহার বিশ্বাসের ছেলে শহিদুল ইসলাম বাদি হয়ে মঙ্গলবার ২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় কোতয়ালি থানায় ভূয়া পুলিশ পরিচয়দানকারী রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। মামলায় তিনি উল্লেখ করেছেন, ২ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার সে তার আলমসাধুতে এলাকার গোলাম হোসেনকে নিয়ে যশোরে প্রয়োজনীয় কাজে আসছিল। বিকেল সাড়ে ৪ টায় যশোর ঝিনাইদহ সড়কের সদর উপজেলার ক্যান্টনমেন্ট এলাকা বিনোদিয়া পার্কের নিকট সেনাবাহিনীর সিগন্যাল গোটের সামনে পৌছালে রবিঊল ইসলাম নিজেকে হাইওয়ে পুলিশ পরিচয় দিয়ে আলম সাধুটিকে থামায়। থামানোর সাথে সাথে নিজেকে হাইওয়ে পুলিশের সদস্য দাবি করে। আলম সাধুকে বারোবাজার হাইওয়ে থানায় নিয়ে আটক করা হলে ১০ হাজার টাকা খরচের কথা জানায়। এক পর্যায় ২ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। আলম সাধুর চালক শহিদুল ইসলাম তার কাছ থেকে আড়াইশ’ টাকা বের করে দেয়। শহিদুলের সহযোগী আবুল হোসেন সাড়ে ৪শ’ টাকা নেওয়ার জন্য রবিউল ইসলামকে অনুরোধ জানায়। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে যশোর ক্যান্টনমেন্টের সদস্যরা এগিয়ে গেলে রবিউল ইসলাম তাদের কাছ থেকে নেওয়া সাড়ে ৪শ’ টাকা ফেরত দেয়। সেনাবাহিনীর সদস্যরা আলমসাধুর কাছে যেয়ে শহিদুল ইসলাম ও আবুল হোসেনের কাছ থেকে বিষয়টি জানতে পেরে ভূয়া পুলিশ রবিউল ইসলামকে সন্দেহজনক মনে করে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে যেয়ে জানতে পারে রবিউল ইসলাম ভূয়া পুলিশ। পরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত