প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] প্রেমে ব্যর্থ হয়ে রুম্পার আত্মহত্যা, ফাঁসছেন প্রেমিক সৈকত

ইসমাঈল ইমু: [২] রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরীতে রুবায়েত শারমিন রুম্পা ছাদ থেকে লাফ দিয়ে ‘আত্মহত্যা’ করেছিলেন। বেশ কয়েক মাসের সম্পর্কের পর প্রেমিক সম্পর্ক থেকে সরে যেতে চাওয়ায় তিনি আত্মহননের পথ বেছে নেন। এ ঘটনার প্রায় ১৩ মাস পর ‘প্রেমিক’ আবদুর রহমান সৈকতকে রুম্পার ‘আত্মহত্যা প্ররোচনায়’ দায়ী করে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

[৩] ২০১৯ সালের ৪ ডিসেম্বর সিদ্ধেশ্বরী এলাকার একটি ভবনের সামনে রুম্পার লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় রুম্পার বাবা পুলিশ কর্মকর্তা রোকন উদ্দিন অজ্ঞাত আসামি করে রমনা মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। পুলিশ প্রথমে মামলাটি তদন্ত করলেও পরবর্তী সময়ে তদন্তভার যায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে।

[৪] পরে রুম্পার মোবাইল কললিস্টের সূত্র ধরে গোয়েন্দা পুলিশ আবদুর রহমান সৈকতকে গ্রেপ্তার করে। তাকে চারদিনের হেফাজতে নিয়ে গোয়েন্দা পুলিশ জানতে পারে রুম্পার সঙ্গে সৈকতের খুব ভালো সম্পর্ক ছিলো। পরে সে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় রুম্পা মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে।

[৫] মামলাটির তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতির জেরেই রুম্পা ছাদ থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেন। মৃত্যুর আগে রুম্পা ধর্ষণের শিকার হননি। এরইমধ্যে মামলাটির অধিকাংশ তদন্ত শেষ করে এনেছে পুলিশ। এখন শুধু প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়ার অপেক্ষা। রুম্পার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনেও হত্যা কিংবা ধর্ষণের কোনো আলামত পাওয়া যা

সর্বাধিক পঠিত