প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমার সন্তানের বাবা হতে চায় না জিলরুর, বললেন অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী

ডেস্ক রিপোর্ট : এক কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে প্রেমিক জিল্লুর রহমানের নামে। এতে ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে সন্তানের দায় না নিয়ে প্রেমিকার পরিবারের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা মামলা করতে গিয়ে উল্টো আটক হন প্রেমিক জিল্লু। মানবকণ্ঠ

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের মামুদপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আটক জিলরুর রহমান, মামুদপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামে আক্কাস আলীর ছেলে।

এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক বছর আগে প্রতিবেশী ওই কিশোরীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে জিলরুরের। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমিকার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন তিনি। এতে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন তার প্রেমিকা। ওই কিশোরীর গর্ভের সন্তানের বাবা হতে নারাজ তিনি। এমনকি ভুক্তভোগীর পরিবারকে হুমকিও দেন জিলরুরের বাবা আক্কাস। এদিকে স্বামীর স্বীকৃতি চেয়ে বারবার জিল্লুরের কাছে যাচ্ছেন তার অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকা।

ভুক্তভোগী কিশোরী বলেন, আমার সন্তানের বাবা হতে চায় না জিলরুর। স্থানীয়ভাবে এলাকায় বসে বিয়ের শর্তে মীমাংসা হলেও পরবর্তীতে তিনি মুখ ফিরিয়ে নেয়। এরপর দায় এড়াতে আমার পরিবারের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা মামলা করতে গিয়ে আটক হয় জিলরুর।
তিনি আরও বলেন, আমি আইনি ঝামেলায় জড়াতে চাই না। আমার সন্তানের স্বীকৃতি চাই।

নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, অভিযুক্ত জিল্লুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। প্রয়োজনে খরব নিয়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, অভিযুক্ত জিল্লুর রহমানকে আটক করে থানা হাজতে রাখা হয়েছে। ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার পরিবারকে ডেকে খবর পাঠানো হয়েছে। তারা এলে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত