প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ‘নিজের ঘর থাইক্কা অহন মরতে ফারমু’

এএইচ রাফি: [২] মোছা. মনোয়ারা বেগম ৬৫ বছরের বৃদ্ধা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের বেলতলী গ্রামে বসবাস করে আসছেন।

[৩] দীর্ঘ ৩০ বছর আগে স্বামী মারা যাওয়ার পর এক মাত্র ছেলে সন্তান নিয়ে সংগ্রামী জীবন তার। স্বামী সুরুজ মিয়া কাজ করতেন দিনমজুরের। মৃত্যুর আগে স্ত্রী সন্তানের জন্য রেখে যাননি কোন কিছু। এমনকি ছিল না বসবাস করা ঘর-ভিটা। ৩০টি বছর মানুষের বাড়ি বাড়ি কাজ করে মনোয়ারা বেগম তার একমাত্র সন্তানকে বড় করেছেন। বসবাস করে আসছেন তার বোনের জায়গায়। ছেলে কুমিল্লা জেলা শহরে কাঠমিস্ত্রীর কাজ করেন।

[৪] মনোয়ারা বেগম এখনো চলেন মানুষের বাড়িতে কাজ করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে মনোয়ারা বেগম পাচ্ছেন আধা পাকা দুই কক্ষ বিশিষ্ট ঘর। এ
এতে মহা খুশি তার পরিবারের সদস্যরা।

[৫] মনোয়ারা বেগমের ছেলে ফোরকান মিয়া জানান, আমার মাকে নিয়ে আমি গর্ব করি। বাবাকে দেখেনি, মা মানুষের বাড়িতে কাজ করে আমাকে বড় করেছে। আমাদের যে অবস্থা আগামী ২০ বছরেও একটি ঘর তৈরি করা সম্ভব হয়ে উঠবে না। ধন্যবাদ জানাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও যারা আমাদেরকে এই ঘর করে দিয়েছেন।

[৬] সদর উপজেলার খাঁটিহাতা গ্রামের ৭০ বছরের বৃদ্ধ শারীরিক প্রতিবন্ধী ইয়াছিন মিয়া। ব্যক্তিজীবনে তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক। তবে নেই কোন নিজের বাসস্থান। এক মাত্র ছেলের ঋণের বুঝা বইতে গিয়ে নিজের ভিটা পর্যন্ত হারিয়েছেন৷ ছেলে তার পরিবার নিয়ে ঢাকায় রিক্সা চালিয়ে চলছেন। ইয়াছিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্থানীয় এক ব্যক্তির একটি পরিত্যক্ত ঘরে বসবাস করছেন তার স্ত্রী জমিলা বেগম ও এক নাতনিকে নিয়ে।

[৭] একটি দুর্ঘটনায় গত তিন বছর যাবত শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধী। স্ত্রী জমিলা প্রতিবেশী সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে যে খাবার সংগ্রহ করে আনেন তা দিতেই চলছেন। তবে এবার অভাবের মধ্যে আনন্দের জুয়ার বইছে বৃদ্ধ ইয়াছিন মিয়ার পরিবারে।

[৮] ইয়াছিনের স্ত্রী জমিলা বেগম বলেন, ‘অত দিন আরেক বেডার জাগাত আছিলাম। অহন নিজের জাগাত থাহুম। টেহা পয়সা অভাবে আছি, আর হাউনের রিজিক তো আল্লাহর কাছে। নিজের ঘরে থাইক্কা অহন মরতে ফারমু। দোয়া করতাছি, মুজিবের ঝিরে আল্লাহ ভালা রাউক।’

[৯] মুজিব বর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভূমিহীনদের জন্য ১ হাজার ৯১টি ঘর প্রস্তুত করা হয়েছে। শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গৃহহীনদের দেয়ার জন্য নির্মিত ঘরের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

[১০] ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খান জানান, প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় বিশেষ এই প্রকল্পের কাজ অত্যন্ত স্বচ্ছতা এবং গুণগত মান বজায় রেখে প্রথম পর্যায়ে ঘর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করবেন। জেলা প্রশাসন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ এই প্রকল্প বাস্তবায়নে কয়েক মাস ধরে বিরামহীন ভাবে কাজ করে। সে সাথে সমাজের প্রকৃত অসহায়দের মাঝে ঘরের ব্যবস্থা করার জন্য তালিকা প্রস্তুত ও প্রনয়ন করে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত